অনার্সে যেভাবে আবেদন করলে চান্স পাবেন ২০২২

অনার্সে যেভাবে আবেদন করলে অনার্সে চান্স পাবেন ২০২২ : জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজ সমূহে অনার্সে ভর্তি পরীক্ষা ছাড়া এসএসসি ও এইচএসসি ফলাফলের ভিত্তিতে ভর্তি করানো হলেও মেধাতালিকা প্রণয়ে রয়েছে অনেক মারপ্যাচ। তাইতো শুধু জিপিয়ের উপর নির্ভর করে বলা যাবে না যে চান্স হবেই। শুধু তাই না চান্স হলেও পছন্দের বিষয় (সাবজেক্ট) পাবেন কিনা তাও একটা বিষয়। তাহলে আপনি এখন কি করবেন? হাত-পা ঘুটিয়ে বসে থাকবেন? মোটেই না! চলুন বিস্তারিত জেনে নেই :

আরও পড়ুন : একাদশ শ্রেণিতে যেভাবে আবেদন করলে চান্স হবে

এখানে আমি সংক্ষেপে সবকিছু গুছিয়ে বলার চেষ্টা করব, যাতে আপনাদের সময় বাচে এবং বিরক্ত না হোন। জাতীয় বিশ্ব্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সময় মেধাতালিকা প্রণয়ন কয়েকটি বিষয়ের ভিত্তিতে প্রণিত হয়। আপনি যদি সেসব বিষয়ে অবগত না হয়ে হুট করে আবেদন করে বসেন তাহলে হয়তঃ গোল খেয়ে যাবেন। তাহলে জেনে নেওয়া যাক কি করবেন এবং কিভাবে আবেদন করবেন?

অনার্সে যেভাবে আবেদন করলে চান্স পাবেন ২০২২

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ম মেধাতালিকা বা আবেদনকৃত কলেজে চান্স পাবার সবচেয়ে বড় হাতিয়ার বুদ্ধি খাটিয়ে আবেদন করা। এদিকে দুঃখজনক হলেও সত্য যে এবার জিপিয়ের মান বিগত বছরের চেয়ে বৃদ্ধি করা হয়েছে। ফলে যারা সাড়ে ৬ বা ৭ পয়েন্ট এর কম পাবে তারা আবেদনই করতে পারবে না। ধরলাম আপনার জিপিএ ভিত্তিক ন্যূনতম যোগ্যতা আছে কিন্তু এটাই শেষ নয়, চান্স হওয়ার ক্ষেত্রে আরও অনেক ঝামেলা আছে, পরে আমি বুঝিয়ে দিচ্ছি।

তাছাড়া আবেদনকৃত কলেজে চান্স পেতে আরও কিছু জিনিস খেয়াল রাখতে হবে। তা হচ্ছে আপনি কোন ধরণের কলেজে ভর্তি হবেন, সরকারি না বেসরকারি? আবার সরকারি হলে শহরে নাকি উপশহরে (উপজেলা)? শহরের কলেজ হলে কলেজের আসন সংখ্যা কত? আরও আছে আপনি কি গ্রুপ পরিবর্তন করে সাবজেক্ট চয়েজ দিবেন নাকি একই গ্রুপের সাবজেক্ট? আবার আপনি যে বিষয় ১ম চয়েজ দিবেন সেটার মার্ক বা পয়েন্ট কত?

তাছাড়া গতবার (এইচএসসি ২০২০) পাশের হার শতভাগ এবং এবার (এইচএসসি-২০২১) পাশের হার প্রায় ৯৮% তাই শিক্ষার্থীর অভাব নেই। এমনকি এবার যারা পাবলিকে ভর্তি হওয়ার জন্য আবেদন করেছে তারাও ঘাড়ের উপর বসে থাকবে। কারন এনএউ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের আগে ভর্তি কার্যক্রম করেছে। তাহলে চলুন জেনে নেই সেই গোপন ট্রিকস!

প্রথমে আসি জিপিএ বা পয়েন্ট নিয়ে। আপনারা জানেন যে একটি মাত্র কলেজে আবেদন করা যায়। এখন আপনার পয়েন্ট কত হলে নিরাপদ? ধরুন আপনার পয়েন্ট ৯. তাতে কি আপনি নিরাপদ? নিশ্চয়ই না। কারন আপনি পয়েন্টের ভিত্তিতে মেধাক্রমে ১ এ অবস্থান করলেও আরও দুই কারনে ছিটকে যেতে পারেন। সেগুলো হচ্ছে এসএসসি ও এইচএসসি উভয় পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর আর অপরটি হচ্ছে বয়স। তবে এই ক্ষেত্রে আসন সংখ্যা বেশি (নিম্নে ৫০) হলে এবং উপজেলা বা বেসরকারি কলেজ হলে সমস্যা হবে না। এখন আমি জিপিয়ের ভিত্তিতে মেধাক্রম নির্ণয় পদ্ধতি ছক আকারে দিলাম।

রোলSSC gpaHSC gpaমোটমেধাক্রম
111552+3=51
11254.8 2+2.8=4.82

এখানে ধাপ-১ এ দুইজন শিক্ষার্থীর জিপিএ ভিন্ন হওয়ায় একজন ১ আর অপরজন ২ হইছে কিন্তু (নিম্নে দেয়া) ধাপ-২ এ দেখুন দুইজনেরই জিপিএ সমান কিন্তু এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় (৪০% ও ৬০% হারে) প্রাপ্ত নম্বর ভিন্ন হওয়ায় একজন ১ আর অপরজন ২ হইছে কিন্তু (নিম্নে দেয়া) ধাপ-৩ এ দেখুন দুইজনের প্রাপ্ত নম্বর সমান কিন্তু উভয়ের মধ্যে বয়সে যে ছোট সে ১ আর অপজন ২ হইছে। এখন আপনারা একটু লক্ষ্য ভেবে দেখুন যে জিপিয়ের ভিত্তিতে মেধাক্রম কিভাবে হয়?

রোলSSC gpaHSC gpaমোটssc নম্বর hsc নম্বর মোটমেধাক্রম
111552+3=5820860328+586=8441
11255 2+3=5820810328+516=8142
রোলSSC gpaHSC gpaমোটssc নম্বর hsc নম্বর মোটবয়সমেধাক্রম
111552+3=5820860328+586=84418 years1
11255 2+3=5820860328+586=84418 + 2 month2

এবার আসি সরকারি আর বেসরকারি কলেজ নিয়ে। আপনারা জানেন যে সরকারি কলেজে তুলনামূলকভাবে কম্পিটিশন বেশি হয়। কারন প্রায় প্রত্যেকেই চায় সরকারি কলেজের সুবিধা গ্রহণ করতে। আর যদি সরকারি কলেজটা কোনো শহরে হয় তাহলে তো আর কোনো কথাই নেই। এখন প্রশ্ন হলো কত পয়েন্ট হলে শহর বা সিটির কোনো সরকারি কলেজে চান্স পাওয়া যাবে?

এই প্রশ্নের উত্তর ৩ টা বিষয়ের উপর নির্ভরশীল। অর্থাৎ আপনার মোট জিপিএ, সাবজেক্ট চয়েস এবং বিভাগ, গ্রুপ বা শাখা পরিবর্তন। এখন এইচএসসিতে যদি আপনার গ্রুপ বিজ্ঞান হয় আর আপনি বিজ্ঞান বিভাগের কোনো বিষয়ে অনার্স করতে চান, তাহলে শহরের কোনো সরকারি কলেজে চান্স পেতে হলে আপনার জিপিএ কমপক্ষে ৯.০০ হলেই হবে। আর যদি মানবিক গ্রুপের শিক্ষার্থী হোন এবং মানবিক বিভাগের কোনো বিষয়ে ভর্তি হতে চান তাহলে কমপক্ষে ৮.৫০ হতে হবে। এভাবে ব্যবসায় শিক্ষার শিক্ষার্থী ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ভর্তি হতে চাইলে কমপক্ষে ৮.৫০ – ৯.৫০+ হতে হবে। এখানে আমি সবার ক্ষেত্রে গড় মিলিয়ে হিসাব দিয়েছি। আপনার চাহিহা অনুযায়ি কমবেশ হবে। এটা বুঝতে পরের প্যারা পড়ুন ভালো করে।

শুধু পয়েন্ট হলেই হবে না, বরং যে সাবজেক্ট বা বিষয়ে আপনি পড়তে চাচ্ছেন সেটাতে আপনার মার্ক (ssc ও hsc উভয়টাতে) বেশি থাকতে হবে এবং কমপক্ষে উক্ত বিষয়ে এইচএসসিতে ৪.০০ পয়েন্ট থাকতে হবে। যত বেশি থাকবে তত এগিয়ে থাকবেন। ধরুন আপনি মানবিকের ছাত্র, মোট পয়েন্ট ৮.৫০ এবং ইংরেজিতে শহরের কোনো সরকারি কলেজে পড়তে চাচ্ছেন, এখন কি করবেন? আদৌ আপনার চান্স হবে? এটা নির্ভর করবে আপনার এইচএসসি’র ইংরেজিতে পাওয়া মার্ক বা জিপিয়ের উপর, যদি A+ পান, তাহলে উক্ত পয়েন্ট নিয়ে উক্ত কলেজে চান্স হওয়ার সম্ভাবনা ৯৫% থাকবে। আর যদি আপনার মোট জিপিএ 9.00 বা তার বেশি হয় এবং ইংরেজিতে A+ থাকে তাহলে ইন-শা-আল্লাহ ৯৯% ইন-শা-আল্লাহ চান্স হবে। এভাবে একটি আরেকটির পরিপূরক। অর্থাৎ বিষয় ভিত্তিক মার্ক কম থাকলে মোট পয়েন্ট বেশি থাকতে হবে, আর মোট পয়েন্ট কম থাকলে বিষয় ভিত্তিক মার্ক বেশি থাকতে হবে।

এভাবে বিজ্ঞান বা ব্যবসায় শিক্ষা শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রেও একই অবস্থা। তবে অপেক্ষাকৃত কম ডিমান্ডের সাবজেক্ট ১ম চয়েস দিলে এত ধরাবাধা আসবে না। তবে যেই বিষয়েই পড়তে চান না কেন এইচএসসিতে উক্ত বিষয়ে 3.00 পয়েন্ট পেতেই হবে। আশাকরি শহরের কোনো সরকারি কলেজে চান্স পাওয়ার ব্যাপারে একটা আইডিয়া পেয়েছেন। তবে শহরের কোনো সরকারি কলেজে আসন সংখ্যা তুলনামূলকভাবে অন্যান্য কলেজের চেয়ে কম হলে কম্পিটিশন / ডিমান্ড বেড়ে যাবে। সেই ক্ষেত্রে জিপিয়ের মানটা উপরে বর্ণিত পয়েন্টের সর্বনিম্ন মানের চেয়ে ১ বা হাফ পয়েন্ট বাড়াতে হবে। অর্থাৎ মানবিক 9.00 ব্যবসায় শিক্ষা 9.50 এবং বিজ্ঞান 9.50+ থাকতে হবে।

এখন যদি আপনি গ্রুপ বা বিভাগ পরিবর্তন করে আবেদন করেন তাহলে চান্স হওয়ার সম্ভাবনা আরও কমে যাবে। কারণ বিজ্ঞান গ্রুপের শিক্ষার্থিদের জন্য মানবিক বিভাগে ১৫% আসন এবং ব্যবসায় শিক্ষা গ্রুপের শিক্ষার্থিদের জন্য মানবিক বিভাগে ৫% আসন বরাদ্ধ রাখা হয়েছে। আবার কোনো কোনো সময় বিজ্ঞান গ্রুপের শিক্ষার্থিদের জন্য মানবিক বিভাগে ১০% আসন বন্টন করা হয়েছে। অর্থাৎ কোনো কলেজে যদি ১০০ জন বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র মানবিক বিভাগে আবেদন করে তন্মধ্যে উপরে বর্ণিত মেধাক্রম অনুযায়ী ১৫ জন শিক্ষার্থী চান্স পাবে। এখন আপনারাই দেখুন গ্রুপ পরিবর্তন করলে কতটা ঝামেলায় পড়তে হবে। তবে হ্যা, যদি আপনার পয়েন্ট মোটামোটি ভালো থাকে এবং নরমাল কোনো কলেজে গ্রুপ পরিবর্তন করে আবেদন করেন তখন ৯০% চান্স হওয়ার পজিবিলিটি থাকবে।

এছাড়াও আপনি যদি ইয়ার গ্যাপ দিয়ে থাকেন আর পয়েন্ট ভালো না থাকে তাহলে ভালো কলেজে মোটেই এপ্লাই করবেন না। তবে মোট ভালো সহ সাবজেক্ট ভিত্তিক পয়েন্টও ভালো হলে শহরের সরকারি কলেজে আবেদন করতে পারবেন। অন্যথায় বেসুরকারি কোনো কলেজ বা উপজেলা কেন্দ্রিক কোনো কলেজে আবেদন করতে হবে। আনুমানিক 8.00 পয়েন্ট থাকলে উপজেলা কেন্দ্রিক সরকারি কলেজে আবেদন করতে পারবেন।

তাই সবশেষে আমি বলবো যে আপনি যদি এইচএসসি ও উভয় মিলে মানবিক বিভাগে ৮.৫০, ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ৮.৫০ এবং বিজ্ঞান বিভাগে ৯.০০ পান তাহলে এবার শহরের কোনো সরকারি কলেজে আবেদন করতে পারেন। তবে এই হার সবার ক্ষেত্রে সমান নয়, প্রত্যেকের চাহিদা ও যোগ্যতা অনুযায়ি একেকজনের একেক পয়েন্ট আসবে। যা আমি উপরে বিস্তারিতভাবে বলছি। তাই আবেদন করতে বুঝে শুনে আবেদন করবেন। তবে আপনার যদি ভালো কোনো সরকারি কলেজে পড়ার খুভ ইচ্ছা থাকে এবং হিসাব নিকাশ করে দেখেন ৮০% আপনার চান্স হওয়ার সম্ভাবনা আছে তাহলে ভালো কলেজে আবেদন করতে পারেন। আর যদি গ্রুপ পরিবর্তন করে আবেদন করেন তাহলে আরও ১ পয়েন্ট বাড়াতে হবে অথবা নিম্ন মানের কলেজ বা বেসরকারি কলেজে আবেদন করতে হবে। *আর উপজেলা বা বেসরকারি কোনো কলেজে আবেদন করলে এর চেয়ে কম পয়েন্ট হলেও চলবে। আশাকরি আমি আপনাদের বুঝাতে পারছি। ভুলত্রুটি হলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।ধন্যবাদ!!!

অনার্সে যেভাবে আবেদন করলে চান্স পাবেন, অনার্সে যেভাবে আবেদন করলে চান্স হবে, যেভাবে আবেদন করলে অনার্সে চান্স হবে, যেভাবে আবেদন করলে অনার্সে চান্স পাবেন, how to get chance to honours, how to get chance in honours, how to get chance in nu, অনার্সে ভর্তি হওয়ার যোগ্যতা ২০২২, অনার্সে ভর্তি যোগ্যতা ২০২২, অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে ২০২২, কোন কলেজে অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে, অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে, অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে ২০২১-২০২২,

আরও পড়ুন :

অনার্সে প্রাথমিক আবেদন করার নিয়ম বিস্তারিত ২০২২

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১-২০২২

75 thoughts on “অনার্সে যেভাবে আবেদন করলে চান্স পাবেন ২০২২”

  1. ভাইয়া আমার পয়েন্ট ৯.০৬
    গ্রুপ সাইন্স
    খুলনার যেকোন একটি সরকারি কলেজে পড়তে চাচ্ছিলাম বাট সাবজেক্টই পেলাম না নেক্সট টাইমের জন্য কিছু এডভাইস দেবেন প্লিস? আমার বয়স ১৯ বছর ৭ মাস সেইজন্য কোনো সমস্যা হচ্ছে?

    1. উপজেলা কেন্দ্রিক কোনো সরকারি কলেজ ১ম চয়েজ দিয়ে আবেদন করবে

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!