জুম্মার দিনের আদবসমূহ | Etiquettes of Jumma’s Day.

★★নিম্নে জুম্মার দিনের আদবসমূহ দেওয়া হলোঃ-

★★Etiquettes of jumma’s Day are given below:-

)জুম্মার দিন ফজরের নামাযে ১ম রাকাতে সূরা সাজদা এবং ২য় রাকাতে সূরা দাহর পড়া। To read sura sajda in the first rakat and sura dahor in the second rakat of fajar’s salat of this day. (Bukhari: 891)

২)জুম্মার দিন সূরা কাহাফ পড়া। To recite sura kahaf in that day. এতে পাঠকের জন্য দুই জুম্মার মধ্যবর্তী সময়কে আল্লাহ তায়ালা আলোকিত করে দেন। for that, Allah tayala
miniates the times of between two jummah. (Hakim: 2/368, Bayhaki: 3/249)

*পরিচ্ছন্নতার জন্য সেদিন নখ কাটা ও চুল কাটা একটি ভালো কাজ।

৩)মিসওয়াক করা। To do miswak.

৪)গোসল করা। To bath. যাদের উপর জুম্মার নামায ফরয, তারা গোসল করবে। Those who are obliged to perform the jumma’s salar, they will take a bath. এটা করা ওয়াজিব। To do it is Wajib. (Bukhari: 897, 898)

৫)জুম্মার সালাতের জন্য সুগন্ধি ব্যবহার করা। To use perfume that means atar for jumma’s salat.

৬)গায়ে তেল ব্যবহার করা। To use oil on body. (Bukhari: 883)

৭)উত্তম পোশাক পরিধান করা। To wear new shirt or dress. (Ibne Majah: 1097)

৮)মুসল্লিদের ইমামের দিকে মুখ করে বসা। Going to masjid, to sit towards Imam. (Tirmizi: 509)

৯)মনোযোগসহ খুৎবা শোনা ও চুপ থাকা।  To hear khutba attentively and to become silent.  (Bukhari: 934)

১০)আগে ভাগে মসজিদে যাওয়া। Going to masjid soon.

১১)পায়ে হেটে মসজিদে যাওয়া। To go to masjid on foot. 

১২) জুম্মা’র নামায সূরা জুম্মা’ ও সূরা মুনাফিকুন দিয়ে পড়া অথবা সূরা ‘আলা ও গাশিয়াহ দিয়ে পড়া। To perform jumma’s salat with sura jumma and sura munafikun or ‘Ala and Gashiyah. (Muslim: 877, 878)

১৩)জুম্মার দিন ও জুম্মার রাতে বেশি বেশি দুরুধ পড়া। To read durudh in that’s day and night.

১৪)এ দিন বেশি বেশি দো’য়া করা। To more pray in this day. 

১৫)মুসল্লিদের ফাক করে মসজিদের সামনের দিকে এগিয়ে না যাওয়া। Not to go to forward removing musolli. (Bukhari: 910)

১৬)মুসল্লিদের ঘাড় ডিঙ্গিয়ে সামনে আগানোর চেষ্টা না করা। Not to try to go forward in bad way.

১৭)কাউকে উঠিয়ে দিয়ে সেখানে না বসা। Not to sit to lob anyone. (Bukhari: 911)

১৮)খুৎবা চলাকালীন সময়ে মসজিদে প্রবেশ করলেও, তাহিয়্যাতুল মাসজিদ নামায না পড়ে বসা। After entering masjid, not to sit without to perform tahiyyatul masjid.  Even The Imam is reciting khutba. (Bukhari: 930)

১৯)জুম্মার দিন জুম্মার পূর্বে জিকির বা কোনো শিক্ষামূলক হালকা না করা। In Jumma’s day, not to jikir or to discuss anythin,  even educative.   (Abu Daud: 1089)

২০)কেউ কথা বললে চুপ না বলা। Not to say STOP when someone talks. (Bukhari: 934)


২১)মসজিদে যাওয়ার আগে কাচা পেয়াজ বা রসুন না খাওয়া এবং ধুমপান না করা। Not to eat launder onion or garlic and not to smoke before going to masjid. (Bukhari: 853)

২২)ঘুমের ভাব আসলে জায়গা পরিবর্তন করা। To change place if comes sleep.


২৩)ইমামের খুতবা দেওয়া অবস্থায় হাটু উঠিয়ে না বসা।  In the time of khutba, not to sit rising knee. (Abu Daud: 1110)


২৪)খুতবার সময় ইমামের কাছাকাছি বসা। In the time of khutba, to sit near imam. জান্নাতে প্রবেশের উপযুক্ত হলেও, ইমাম থেকে দূরে উপবেশনকারীরা বিলম্বে জান্নাতে প্রবেশ করবে। Those who will have far from imam, they will enter to Jannah lately, even if they are perfect. (Abu Daud: 1108)

২৫)জুম্মার আযান দেওয়া। To give jumma’s azan. অর্থাৎ ইমাম মিম্বরে বসার পর, যে আযান দেওয়া হয়। Azan is that is given after sitting imam on mimber. (Bukhari: 912)


২৬)জুম্মার ফরয সালাত আদায়ের পর, ৪ রাকাত সুন্নত নামায পড়া। After performing of jumma’s faraz salat, to perform sunnat salat which is 4 rakat.

২৭) উযর ছাড়া একই গ্রাম ও মহল্লায় একাধিক জুম্মা চালু না। Not to perform twice jumma without problem in a village. আর, উযর হলো এলাকাটি খুভ বড় হওয়া, বা প্রচুর জনবসতি থাকা, বা মসজিদ দূরে থাকা, বা কোন ফিতনা ফাসাদের ভয় থাকা। And problem is that to become village very big or many people or to far masjid or to have fear of any quarrel or fitna.
(Fatwa ibne taimiyyah: 24/208)

২৮)অযু ভেঙ্গে গেলে মসজিদ থেকে বের হয়ে যাওয়া।  To go out from masjid if someone’s ozu brokes. 
(Abu Daud: 1114)

২৯)একান্ত উযর না থাকলে দুই পিলারের মধ্যবর্তী জায়গায় নামায না। Without any problem, not to perform salat between two pillars.  
(Hakim: 1/128)

৩০)নামাযের জন্য কোনো জায়গা নির্দিষ্ট না করা। Not to definite any place for salat. (Abu Daud: 862)

৩১)নামাযীর সামনে দিয়ে না হাটা। Not to walk forward of prayer(salat)  (Bukhari: 510)

৩২)জোড়ে জোড়ে কোনোকিছু না পড়া, যাতে অন্যের নামায বিঘ্ন হয়। Not to read anything loudly, so that the prayers of others are interrupted. (Abu Daud: 1332)

৩৩)খুতবার সময় খতিবের কোনো কথার জবাব দেওয়া জায়েয। In the time of khutba, it is jayez, to give reply of any question of khatib. (Bukhari: 1029)

৩৪)হানাফীগণ বলেন যে, প্রচন্ড ভীর হলে মুসল্লিদের পিঠে সিজদা দেওয়া জায়েয। Hanafis say that to give sijda on musolli’s backrest is Jayez.  (Ahmad: 1/32).  প্রয়োজনে পায়ের উপরও জায়েয হবে। Even if, on the legs. (Ar-raudul murbi)

৩৫)জুম্মার ফরয আদায় করার পর, অন্যত্রে সুন্নত নামায পড়া। অথবা কোনো কথা না বলে অন্যত্রে সুন্নত নামায পড়া। After performing faraz salat, to perform sunnot salat in elsewhere.  Or to perform sunnot salat in elsewhere not any talking. (Bukhari: 848, Muslim: 710)

♠♠সূত্রঃ- বই- প্রশ্নোত্তরে জুম্মা ও খুতবা।


Leave a Reply