পলিটেকনিক ভর্তি ২০২২ | ডিপ্লোমা ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২২

পলিটেকনিক ভর্তি ২০২২পলিটেকনিক ভর্তি ২০২১-২০২২সরকারি পলিটেকনিক ভর্তি ২০২২বেসরকারি পলিটেকনিক ভর্তি ২০২২ : বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড আওতাধীন ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে ০৪ বছর মেয়াদি সকল সরকারি ও বেসরকারি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ সমূহে ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং, ডিপ্লোমা-ইন-টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং, ডিপ্লোমা-ইন-এগ্রিকালচার, ডিপ্লোমা-ইন-ফরেস্টি, ডিপ্লোমা-ইন-ফিশারিজ, ডিপ্লোমা-ইন-লাইভস্টক এবং ০২ বছর মেয়াদী এইচএসসি (বিজনেস ম্যানেজমেন্ট এন্ড টেকনোলজি), এই.চএস.সি ভোকেশনাল), ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স ও সার্টিফিকেট-ইন-মেরিন ট্রেড কোর্সে ১ম ও ২য় শিফটে ছাত্র / ছাত্রী ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে।

পলিটেকনিক / ডিপ্লোমা ভর্তি তথ্য ২০২১-২০২২

সুপ্রিয় বন্ধুরা! তোমরা এডু মাসাইলের (edu masail) এই পোষ্ট হতে ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড আওতাধীন সরকারি ও বেসরকারি পলিটেকনিক ভর্তির সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া, ভর্তি যোগ্যতা, ভর্তির প্রাথমিক আবেদন পদ্ধতি, ফি জমাদানের নিয়মাবলী, ভর্তি সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ সময়সূচী সহ প্রাসঙ্গিক আরও অনেককিছু জানতে পারবেন। চলুন শুরু করা যাক :

পলিটেকনিক / ডিপ্লোমাভর্তির সময় ২০২২
সরকারিতে আবেদনের
সময়
০৮ জানুয়ারি ২০২২ হতে
১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২২ পর্যন্ত
বেসরকারিতে আবেদনের
শেষ সময়
২৮ ফেব্রুয়ারি (ভোক ও কমার্স)
১২ মার্চ (ডিপ্লোমা) ২০২২ পর্যন্ত
১ম মেধাতালিকার ফল২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২
১ম পর্যায়ে নিশ্চায়ন২৫ ফেব্রুয়ারি হতে
০১ মার্চ ২০২২ পর্যন্ত

পলিটেকনিক ভর্তির সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া এক নজরে দেখে দাও

সরকারি পলিটেকনিকে যেভাবে ভর্তি হবে : যারা সরকারি পলিটেকনিকে ভর্তি হতে চাও তাদেরকে প্রথমে অনলাইনে প্রাথমিক আবেদন করতে হবে। আবেদন করার নিয়ম নিম্নে দেওয়া আছে। তারপর ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২ তারিখে তাদের ১ম মেধাতালিকার ফল বের হবে। ফল পাওয়ার পর ০১ মার্চ ২০২২ তারিখের আগে অবশ্যই ভর্তি নিশ্চায়ন করে নিতে হবে। ভর্তি নিশ্চায়ন করার নিয়ম এখান থেকে জানতে পারবে।

আর নিশ্চায়ন করার সাথে সাথেই অটোমাইগ্রেশন চালু হয়ে যাবে। এর মাধ্যমে তুমি যে কলেজে চান্স পেয়েছো সেই কলেজের উপরের কলেজে মাইগ্রেশন হবে। এভাবে ২ বার মাইগ্রেশন এর ফল দিবে। সবশেষে তুমি যে কলেজে চান্স পাবে সেই কলেজে ভর্তি হতে হবে। তবে তুমি চাইলে অটো মাইগ্রেশন অফ করতে পারবে।

আরেকটা বিষয় প্রতিবার মাইগ্রেশনের ফল বের হওয়ার পর ভর্তি নিশ্চায়ন করতে হবে নতুবা সিলেকশন বাতিল হয়ে যাবে। ১ম মাইগ্রেশনের ফল দিবে ০২ মার্চ, যার নিশ্চায়নের সময়সীমা ০২ হতে ০৬ মার্চ পর্যন্ত আর ২য় মাইগ্রেশনের ফল দিবে ০৭ মার্চ, যার নিশ্চায়নের সময়সীমা ০৭ হতে ১২ মার্চ পর্যন্ত। সবশেষে তুমি যে কলেজে চান্স পাবে সেই কলেজে সরাসরি গিয়ে ০২ এপ্রিল হতে ০৯ এপ্রিল ২০২২ তারিখের মধ্যে চূড়ান্তভাবে ভর্তি হতে হবে।

বেসরকারি পলিটেকনিকে যেভাবে ভর্তি হবে : যারা বেসরকারি পলিটেকনিকে ভর্তি হতে চাও তাদেরকে যেমন মেধাতালিকা প্রকাশের জন্য অপেক্ষা করতে হবে না ঠিক তেমনিভাবে তাদের জন্য নেই কোনো মাইগ্রেশন। তবে তাদেরকে অনলাইনে প্রাথমিক আবেদন করতে হবে। আবেদন করার নিয়ম নিম্নে দেওয়া আছে। এ ক্ষেত্রে যারা ২ বছর মেয়াদী এইচএসসি (ভোকেশনাল / বিএমটি) ও ডিপ্লোমা ইন কমার্সে ভর্তি হতে চাও তাদেরকে ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২ তারিখের মধ্যে আবেদন করতে হবে। আর বাকি কোর্সে আবেদনকারীরা ১২ মার্চ ২০২২ তারিখ পর্যন্ত আবেদন করতে পারবে।

আবেদন করার সাথে সাথেই তাদের ফল মোবাইলে জানিয়ে দেওয়া হবে। ফল পাওয়ার পর সাথে সাথে ভর্তি নিশ্চায়ন করে নিতে হবে। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে নিশ্চায়ন করার ৭ কার্যদিবস অর্থাৎ এক সাপ্তাহের মধ্যে কলেজে গিয়ে চূড়ান্তভাবে ভর্তি হতে হবে। নতুবা তাদের নিশ্চায়ন বাতিল হয়ে যাবে। আর নিশ্চায়ন বাতিল হলে তারা আর ভর্তি হতে পারবে না।

পলিটেকনিক / ডিপ্লোমা ভর্তির যোগ্যতা ২০২২

পলিটেকনিক বা কারিগরি তে দুইভাবে ভর্তি হওয়া যায়। এক সরকারি দুই বেসরকারি। তন্মধ্যে সরকারিতে ১০ টি কোর্স ও বেসরকারিতে ৫ টি কোর্স রয়েছে। এখানে সরকারিতে থাকা ১০ টি কোর্সের ৫ টি রয়েছে। আবার কোর্সের মেয়াদ ৪ বছর ও ২ বছরের রয়েছে। তাই ভর্তির ক্ষেত্রে কোর্সভিত্তিক শিক্ষাগত যোগ্যতারও তারতম্য রয়েছে। নিম্নে পৃথক পৃথকভাবে উভয় ধরণের যোগ্যতার বিবরণ দেয়া হলো :

সরকারি পলিটেকনিকে ভর্তি যোগ্যতা

ডিপ্লোমা ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ক্ষেত্রে : সকল শিক্ষা বোর্ড অথবা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এস.এস.সি / দাখিল / এস.এস.সি (ভোকেশনাল) / দাখিল (ভোকেশনাল) / সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ এবং ছাত্রদের ক্ষেত্রে সাধারণ গণিত বা উচ্চতর গণিতে জিপি ৩.০০ সহ কমপক্ষে জিপিএ ৩.৫০ এবং ছাত্রীদের ক্ষেত্রে সাধারণ গণিত বা উচ্চতর গণিতে জিপি ৩.০০ সহ কমপক্ষে জিপিএ ৩.০০ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা অথবা ও লেভেলে যেকোন একটি বিষয়ে ‘সি’ গ্রেড এবং গণিতসহ অন্য যেকোন দুটি বিষয়ে ন্যূনতম ‘ডি’ গ্রেড পেয়ে যে কোন সালে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। জিপিএ পদ্ধতি চালুর পূর্বে এস.এস.সি বা সমমান পরীক্ষায় ন্যূনতম ২য় বিভাগ প্রাপ্ত যে কোন সালে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী আবেদন করতে পারবে।

উল্লেখ্য, সাধারন, মাদ্রাসা এবং কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষাধারার যথাক্রমে : বিজ্ঞান, দাখিল (বিজ্ঞান) ও এস.এস.সি. (ভােকঃ)/দাখিল (ভােক) ব্যতিত অন্যান্য বিভাগ এবং উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় হতে এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় পাস করেছেন সেসকল Non Science শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান ও গণিতে শিখন স্বল্পতা (Learning Gap) দূরীকরনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বাের্ড কর্তৃক প্রণয়নকৃত ০৬ সপ্তাহ ব্যাপী সক্ষমতা বৃদ্ধিমূলক কোর্স (Remedial Course) এর বিষয়বস্তুর উপর বাের্ড কর্তৃক অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা নির্ধারিত জিপিএ থাকা সাপেক্ষে ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং ও ডিপ্লোমা-ইন-টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষাক্রমের ১ম পর্বে ভর্তির আবেদনের যােগ্য বলে বিবেচিত হবে। এ সকল শিক্ষার্থীদের Remedial Course এ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য বর্ণিত লিংকে (http://180.211.164.133/remedial/) রেজিস্ট্রেশনের জন্য অনুরােধ করা হলাে।

ডিপ্লোমা-ইন-এগ্রিকালচার, ফরেস্ট্রি, লাইভস্টকফিসারিজ ক্ষেত্রে : সকল শিক্ষা বাের্ড অথবা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এস.এস.সি / দাখিল / এস.এস.সি (ভােকেশনাল) / দাখিল (ভােকেশনাল) / সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে জিপিএ ২.৫০ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা অথবা ‘ও’ লেভেলে যে কোন একটি বিষয়ে ‘সি’ গ্রেড ও অন্য যেকোন দুটি বিষয়ে ন্যূনতম ‘ডি’ গ্রেড পেয়ে উত্তীর্ণ যে কোন বয়সের শিক্ষার্থীরা ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে।

আর জিপিএ পদ্ধতি চালুর পূর্বে এস.এস.সি বা সমমান পরীক্ষায় ন্যূনতম ২য় বিভগে উত্তীর্ণ যে কোন বয়সের শিক্ষার্থী আবেদন করতে পারবে। তবে ডিপ্লোমা-ইন-লাইভস্টক শিক্ষাক্রমের ক্ষেত্রে জীববিজ্ঞান বিষয়ে জিপি ৩.০০ সহ বিজ্ঞান বিভাগ থেকে সম্প্রতি পাসকৃতদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে এবং মােট জিপিএ এর ভিত্তিতে মেধা তালিকা করা হবে। এক্ষেত্রে সমান জিপিএ প্রাপ্তদের মেধাক্রম নির্ধারণের ক্ষেত্রে জীববিজ্ঞান বিষয়ে প্রাপ্ত জিপি বিবেচনা করা হবে।

বেসরকারি পলিটেকনিকে ভর্তি যোগ্যতা

ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং, টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ক্ষেত্রে : সকল শিক্ষা বাের্ড অথবা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এস.এস.সি / দাখিল / এস.এস.সি (ভােকেশনাল) / দাখিল (ভােকেশনাল) / সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে জিপিএ ২.০০ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা অথবা ‘ও’ লেভেল উত্তীর্ণ যে কোন বয়সের শিক্ষার্থীরা ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। জিপিএ পদ্ধতি চালুর পূর্বে এস.এস.সি বা সমমান পরীক্ষায় ন্যূনতম ২য় বিভাগে যে কোন সালে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী আবেদন করতে পারবে।

উল্লেখ্য, সাধারণ, মাদ্রাসা এবং কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষাধারার যথাক্রমে : বিজ্ঞান, দাখিল (বিজ্ঞান) ও এস.এস.সি (ভােকঃ) / দাখিল (ভােকঃ) ব্যতীত অন্যান্য বিভাগের “Non-Science” শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান ও গণিতে শিখন স্বল্পতা (Learning Gap) দূরীকরণের লক্ষ্যে ০৬ (ছয়) সপ্তাহব্যাপী সক্ষমতা বৃদ্ধিমূলক কোর্স (Remedial Course) এর বিষয়বস্তুর উপর বাের্ড কর্তৃক অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া শিক্ষার্থীরা নির্ধারিত জিপিএ থাকা সাপেক্ষে ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং ও ডিপ্লোমা-ইন-টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষাক্রমের ১ম পর্বে ভর্তির আবেদনের যােগ্য বলে বিবেচিত হবে।

ডিপ্লোমা-ইন-এগ্রিকালচার, ফিসারিজ এর ক্ষেত্রে : সকল শিক্ষা বাের্ড অথবা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এস.এস.সি / দাখিল /এস.এস.সি (ভােকেশনাল) / দাখিল (ভােকেশনাল) / সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে জিপিএ ২.০০ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা অথবা ‘ও’ লেভেল উত্তীর্ণ যে কোন বয়সের শিক্ষার্থীরা ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। জিপিএ পদ্ধতি চালুর পূর্বে এস.এস.সি বা সমমান পরীক্ষায় ন্যূনতম ২য় বিভাগে যে কোন সালে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী আবেদন করতে পারবে।

পলিটেকনিকে আবেদন করার নিয়ম ২০২১-২০২২

বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ড আওতাধীন কোনো কোর্সে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীকে আবেদন করার ১ ঘন্টা পূর্বে টেলিটক/বিকাশ/রকেট/শিওরক্যাশ -এর মাধ্যমে ১ম শিফট বা ২য় শিফট অথবা উভয় শিফটে ভর্তির জন্য আবেদন ফি বাবত ১৫০ অথবা ৩০০ টাকা প্রদান/জমা দিয়ে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে।

পলিটেকনিকে ভর্তি হওয়ার জন্য আবেদন করার পূর্বে আবেদন ফি আলাদাভাবে প্রদান করতে হয়। আর এই আবেদন ফি বিভিন্ন মাধ্যমে জমা দেওয়া যায়। যথা: বিকাশ, রকেট, শিওরক্যাশ এবং টেলিটক এর মধ্যমে। নিম্নে জনপ্রিয় মাধ্যম বিকাশ ও টেলিটকের মাধ্যমে আবেদন ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতি বর্ণনা করা হলো:-

বিকাশ এর মাধ্যমে ফি জমা দেওয়ার নিয়ম

ধাপ -১ : বিকাশ অ্যাপ ডাউললােড করে বিকাশ অ্যাপে প্রবেশ করতে হবে। ধাপ ২ : এখন Pay Bill নির্বাচন করে Organization বা সার্চ বক্সে DTE লিখে সার্চ করতে হবে অথবা Scroll Down করে মেনু থেকে DTE সিলেক্ট করতে হবে। ধাপ ৩ : এবার পেমেন্ট কোড শিফট > < পাসের সন > < বাের্ড কোড > < রােল নম্বর ও মােবাইল নম্বর দিতে হবে।

ধাপ ৪ : সবকিছু ঠিক থাকলে আবেদন ফি এর পরিমান দিতে হবে। (১৫০ টাকা। তবে উভয় শিফটের জন্য ৩০০ / – টাকা) ধাপ ৫ : Pin Number চাইলে ঐ বিকাশ একাউন্টের পিন নম্বর প্রদান করতে হবে এবং টিপ দিয়ে ধাপ ৬ : Payment সফল হলে Successful SMS প্রদর্শিত হবে। পরবর্তি ব্যবহারের জন্য আপনার Payment Receipt ডাউনলােড করে রাখুন।

বোর্ড কোর্ড :  আবেদনকারী যে শিক্ষা বাের্ড থেকে এস.এস.সি. পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে, ঐ বাের্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর (যেমন : ঢাকা বাের্ডের বেলায় (DHA), সিলেট (SYL), বরিশাল (BAR), চট্টগ্রাম (CHA), কুমিল্লা (CUM), দিনাজপুর (DIN), যশাের (JAS), রাজশাহী (RAJ), মাদ্রাসা (MAD), কারিগরি (TEC), ময়মনসিংহ (MYM), উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (BOU), অন্যান্য (OTH) এবং ১ম শিফট হলে (A), ২ য় শিফট হলে (B) এবং উভয় শিফট হলে (C) হবে।

টেলিটক এর মাধ্যমে ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতি 

ধাপ ১ : টেলিটক প্রিপেইড সংযোগ/সিম থেকে মোবাইলের মেসেজ অপশনে যান। ধাপ ২: লিখুন BTAD এরপর স্পেস দিয়ে এসএসসি /সমমান পরীক্ষা পাসের Board এর প্রথম তিন অক্ষর। ধাপ ৩ : এরপর একটি স্পেস দিয়ে এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের রোল নম্বর এবং (আবার স্পেস দিয়ে) পাসের সন দিন। ধাপ ৪ : এরপর ভর্তিচ্ছু শিফট এর নির্দিষ্ট অক্ষর লিখে প্রেরন করুন ১৬২২২ নাম্বারে।

ধাপ ৫ : উদাহরণ স্বরুপ দেখুন  BTAD DHA 123456 2020 S —- উল্লেখ্য যে, উপরের উদাহরনে S -এর স্থলে ১ম শিফট হলে A দিবেন। ২য় শিফট হলে B দিবেন। আর উভয় শিফট হলে C দিবেন।

তারপর প্রার্থী আবেদনের যোগ্য হলে আবেদন কারীর নাম, পিতার নাম এবং ১ম বা ২য় শিফটের জন্য আবেদন ফি বাবত ১৫০/- অথবা উভয় শিফটের জন্য আবেদন ফি বাবত ৩০০/- টাকা কেটে রাখার সম্মতি চেয়ে ফিরতি SMS দেওয়া হবে। ফিরতি SMs- এ আবেদনকারীর তথ্যাবলি সঠিক থাকলে, পূনরায় SMS পাঠিয়ে সম্মতি দিবেন। সম্মতি দেওয়ার জন্য নিম্নোক্তভাবে মেসেজ অপশনে গিয়ে লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে।

BTAD  YES  PIN Number   মোবাইল নম্বর। উদাহরণ BTAD YES 252525 0171725****

উল্লেখ্য যেযেকোনো অপারেটরের মোবাইল নম্বর শুধুমাত্র একজন প্রার্থীর ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে হবে। এরপর ফিরতি SMS- এ প্রার্থীকে একটি Money receipt number দেওয়া  হবে। উল্লেখ্য যে,  Money receipt number টি নিজ দায়িত্বে সংরক্ষণ করতে হবে এবং এটি পাওয়ার পর অনলাইনে আবেদন ফরম পূরন করতে হবে। Money receipt number ছাড়া কোনোভাবেই অনলাইনে আবেদন ফরম পূরন করা যাবে না।

অনলাইনে পলিটেকনিকে ভর্তি আবেদন নিয়ম ২০২২

আবেদন ফি দেওয়ার পর যে কোনো প্রতিষ্ঠানে ভর্তির জন্য প্রথমে btebadmission.gov.bd ওয়েবসাইটের Home page হতে ভর্তি কোর্স সিলেক্ট করুন। তারপর যে পেজ আসবে সেখানে থাকা “Apply Now” বাটনে ক্লিক করে Application form Open করতে হবে।

এরপর যে পেজ আসবে তাতে এসএসসি রোল, বোর্ড নাম ও পাশের সন লিখে এন্ট্রি দিতে হবে। ২য় ধাপে টেলিটক / রকেট / শিওরক্যাশ / বিকাশ এর SMS এর মাধ্যমে পাওয়া Transaction Code পূরণ করতে হবে। Transaction Code সঠিক হলে পরের ধাপে যেতে পারবে।

৩য় ধাপে আবেদনকারীর তথ্য প্রদর্শিত হবে এবং এখানে আবেদনকারীর ছবি (পরিষ্কার পাসপাের্ট সাইজের রঙিন ছবি JPEG Format -এ, এবং অনধিক ১০০ KB) আপলােড করতে হবে। এছাড়াও আবেদনকারীর কোন কোটা থাকলে হলে সেই সংক্রান্ত document আপলােড করতে হবে।

৪র্থ ধাপে সকল প্রতিষ্ঠান এবং প্রতিষ্ঠানের টেকনােলজি ও শিট প্রদর্শিত হবে এবং সেখান থেকে প্রতি শিফট এ অনধিক ১৫ টি করে প্রতিষ্ঠান-টেকনােলজি পছন্দ করতে পারবে। উভয় শিটের জন্য ৩০ টি করে প্রতিষ্ঠান-টেকনােলজি পছন্দ করতে পারবে।

৫ম ধাপে প্রতিষ্ঠান-টেকনােলজি পছন্দ শেষ হলে পছন্দকৃত সকল শিফ্ট – প্রতিষ্ঠান – টেকনােলজি প্রদর্শিত হবে এবং এখানে আবেদনকারী তার পছন্দক্রম পরিবর্তন করতে পারবে।

৬ষ্ট ধাপে আবেদনকারীকে তার সকল তথ্য, ছবি, পছন্দকৃত প্রতিষ্ঠান – টেকনােলজি এবং পছন্দক্রম প্রদর্শন করা হবে, এবং আবেদন সম্পন্ন করার সর্বশেষ অনুমতি চাওয়া হবে।

৭ম ধাপে আবেদন সম্পন্ন হলে আবেদনকারীর মােবাইলে SMS এর মাধ্যমে আবেদনের Application ID এবং Pin Number পাঠানাে হবে। এই Application ID এবং Pin Number দিয়ে পরবর্তীতে আবেদনকারী তার আবেদনের তথ্যসমূহ সংশােধন করতে পারবে।

Application ID এবং Pin Number গােপনীয়ভাবে লিখে রাখার জন্য অনুরােধ করা হলাে। Pin Number হারিয়ে গেলে btebadmission.gov.bd লিংকে গিয়ে চাহিত তথ্য পুরনের মাধ্যমে Pin Number পুনরুদ্ধার করা যাবে।

পলিটেকনিক ভর্তির মেধাতালিকার ফলাফল 2022

বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ড এর আওতাধীন সকল সরকারি ও বেসরকারি পলিটেকনিক / সমমান প্রতিষ্ঠান সমূহে ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে  ডিপ্লোমা ইঞ্জিয়ারিং কোর্স ভর্তির ১ম মেধাতালিকার ফলাফল — রাত ৮:০০ টায় প্রকাশিত হয়েছে। পলিটেকনিক ভর্তির রেজাল্ট জনার নিয়ম দেখুন :

  1. প্রথমে নিম্নে দেওয়া রেজাল্ট দেখার বক্সে ক্লিক করুন। অথবা সরাসরি ওয়েবসাইটেও যেতে পারেন।
  2. পলিটেকনিক ভর্তির মেধাতালিকার ফলাফল দেখুন এখান থেকে
  3. এরপর roll number অপশনে রোল নম্বর দিন।
  4. এরপর board অপশনে বোর্ডের নাম দিন।
  5. এরপর year অপশনে 2021 দিন।
  6. এবার bteb result অপশনে ক্লিক করে রেজাল্ট দেখে নিন।
        পলিটেকনিক / ডিপ্লোমা ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২২
Diploma (polytechnic) admission 2022 - পলিটেকনিক ভর্তি ২০২১-২০২২
পলিটেকনিক ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২২

আপেক্ষমান তালিকা প্রণয়ন

  1. মোট আসন সংখ্যা অনুযায়ী মেধা, পছন্দের ক্রম ও কোটা ভিত্তিক তালিকা প্রণয়নের পাশাপাশি একটি অপেক্ষমাণ তালিকা প্রণয়ন করা হবে।
  2. মেধাক্রম অনুযায়ী ভর্তিকৃত প্রার্থী পছন্দের ক্রমানুসারে প্রতিষ্ঠান-টেকনোলজি ভিত্তিক মাইগ্রেশনের সুযোগ পাবে।
  3. মেধা তালিকা অনুযায়ী ভর্তির সময়সীমা অতিক্রান্ত হওয়ার পর প্রতিষ্ঠান/টেকনোলজি ভিত্তিক শূন্য আসনে অপেক্ষমান তালিকা হতে মেধা, পছন্দের ক্রম ও কোটার ক্রমানুসারে ভর্তি করা হবে।

মেধাতালিকা প্রণয়ন : এসএসসি সমমান পরীক্ষায় পাসের রেজাল্ট, পছন্দের ক্রম, কোটা ও অন্যান্য প্রযোজ্য শর্তের ভিত্তিতে প্রার্থীর মেধা তালিকা প্রণয়ন করা হবে।

  1. মোট আসন সংখ্যা অনুযায়ী মেধা, পছন্দের ক্রম ও কোটা ভিত্তিক তালিকা প্রণয়নের পাশাপাশি একটি অপেক্ষমাণ তালিকা প্রণয়ন করা হবে।
  2. মেধাক্রম অনুযায়ী ভর্তিকৃত প্রার্থী পছন্দের ক্রমানুসারে প্রতিষ্ঠান-টেকনোলজি ভিত্তিক মাইগ্রেশনের সুযোগ পাবে।
  3. মেধা তালিকা অনুযায়ী ভর্তির সময়সীমা অতিক্রান্ত হওয়ার পর প্রতিষ্ঠান/টেকনোলজি ভিত্তিক শূন্য আসনে অপেক্ষমান তালিকা হতে মেধা, পছন্দের ক্রম ও কোটার ক্রমানুসারে ভর্তি করা হবে।

সরকার কর্তৃক নির্ধারিত কোটা

মহিলা-২০%, এসএসসি (ভোকেশনাল)-১৫%, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী আবেদনকারীদের –ঢাকা, চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ-সুইডেন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের প্রতিটিতে ৪টি করে ও অন্যান্য পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ২টি করে, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান/সন্তানের প্রতি টেকনোলজিতে প্রতি গ্রুপে ২টি করে, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিক্ষার্থী কোটা ৫% এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় এর অধীন কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর ও অধিদপ্তরাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারীর সন্তানদের জন্য ২% আসনে মেধা ও আবেদন ফরমে বর্ণিত পছন্দের ভিত্তিতে কোটা সংরক্ষণ করে ভর্তি করা হবে।

এসএসসি সহ বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত ০২ (দুই) বছর মেয়াদী ট্রেড কোর্স পাস প্রার্থীদের ট্রেড কোর্সে প্রাপ্ত নম্বরের ও এসএসসি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে মেধা নির্ধারণ করা হবে এবং তাদেরকে ৫% সংরক্ষিত আসনে ভর্তি করা হবে।

সরকার নির্ধারিত কোটার আবেদনের প্রমাণপত্র

(ক) ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী আবেদনকারীদের সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভার চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রদত্ত সনদপত্র

(খ) মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের/সন্তানের সন্তানদের সনাক্তকরণের জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় হতে প্রদত্ত সনদপত্র

(গ) শিক্ষা মন্ত্রণালয়, এর অধীন কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর ও অধিদপ্তরাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারীর সন্তানদের সনাক্তকরণের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/দপ্তর/প্রতিষ্ঠান প্রধানের সনদপত্র

(ঘ) বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে সমাজসেবা অধিদপ্তরের সনদপত্র এবং

(ঙ) বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত ০২ (দুই) বছর মেয়াদী ট্রেড কোর্সধারীদের সনদপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি, আবেদনকারীর Application ID সম্বলিত প্রিন্ট আউটসহ আবেদনপত্র নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে ডাকযোগে/সরাসরি অফিস চলাকালীন সময়ে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের পিছনের বিল্ডিংয়ের ২০১ নং কক্ষে সরাসরি অথবা ডাকযোগে পৈাঁছানো নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায় তার কোটা বিবেচিত হেব না। ট্রেড কোর্সধারী শিক্ষার্থীদের ট্রেড সংশ্লিষ্ট বিভাগে ভর্তি করা হবে।

অন-লাইনে আবেদনের পর সরকার নির্ধারিত কোটা সুবিধা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে উল্লেখিত সংশ্লিষ্ট সকল প্রমাণপত্রসমূহ (Application ID সম্বলিত আবেদনের প্রিন্ট কপিসহ) নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে আবেদন ফরম পাওয়া না গেলে প্রযোজ্য কোটা বিবেচ্য হবে না। তাছাড়া সরকার নির্ধারিত কোটার উপযুক্ত প্রার্থী পাওয়া না গেলে পর্যায়ক্রমে মেধা তালিকা/অপেক্ষমান তালিকা হতে কোটাভিত্তিক শূন্য আসন পূরণ করা হবে।

শূন্য আসন পূরণ

  • ভর্তিকৃত ছাত্র/ছাত্রীদের মধ্যে কেউ ক্লাস শুরুর ০৭ (সাত) কার্যদিবসের মধ্যে ক্লাসে অনুপস্থিত থাকলে তার ভর্তি বাতিল বলে গণ্য হবে।  উক্ত শূণ্য আসনে পরবর্তী ০৭ (সাত) কার্যদিবসের মধ্যে নির্বাচিত ও ভর্তিচ্ছুকদের তালিকা হতে মেধার ক্রমানুসারে পূরণ করা হবে।
  • ভর্তির ক্ষেত্রে ২০% ড্রপ-আউট বিবেচনায় টেকনোলজি ভিত্তিক প্রতি গ্রুপে আসন সংখ্যা ৫০(পঞ্চাশ) নির্ধারণ করা হয়েছে।

ভর্তি সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্যাবলি

  • অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ, ছবি সংযোজন, টেলিটকের মাধ্যমে আবেদন ফি প্রেরণসহ আনুষঙ্গিক কার্যক্রম প্রার্থীকে নিজ দায়িত্বে সম্পন্ন করতে হবে। প্রার্থী এ বিষয়ে কারো সহযোগীতা নিয়ে প্রতারিত হলে কর্তৃপক্ষ এর জন্য দায়ী থাকেবে না।
  • ভর্তি সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম অন-লাইন এবং ভর্তি নীতিমালা-২০২০ অনুযায়ী সম্পাদিত হবে।

আরও দেখুন : এইচএসসি ভর্তি ২০২২

        পলিটেকনিক ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২০-২০২১
পলিটেকনিক ভর্তি বিজ্ঞপ্তি 1
পলিটেকনিক ভর্তি বিজ্ঞপ্তি 2

111 thoughts on “পলিটেকনিক ভর্তি ২০২২ | ডিপ্লোমা ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২২”

    1. পলিটেকনিকে ডিগ্রি নাই। ন্যাশনাল বা উন্মুক্ততে ডিগ্রি আছে।

  1. আমি ২০১৫ তে এইচএসসি পাস করছি পরে ২০২০ পর্যন্ত ইউনিভার্সিটিতে পড়ার পর পড়া বন্ধ করে দেই। ২০২১ এ ডুবাই যাই এখন আবার ৪ মাসের ছুটিতে আসছি আমি ইলেক্ট্রনিক এর কোর্স করতে পারবো?

    1. আপনার জন্য উন্মুক্ত ভালো। তবে অন্য সাবজেক্টে পড়তে হবে। আর পলিটেকনিকে ক্লাস করা লাগবে।

  2. HSC এর পরেও কি সরকারি পলিটেকনিকে ভর্তি হওয়া যায়? যদি ভর্তি হওয়া যায় তাহলে কম্পিউটার সাইন্স পড়তে হলে কেমন রেজাল্ট লাগব?

          1. Mohammad Shakib

            আচ্ছা ভাইয়া..আবেদন করার পর আমি কি আমার পছন্দ মতো প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারবো? বোঝায়ে বললে অনেক উপকৃত হতাম ভাইয়া🙏🙏

            1. না, আবেদন করার সময় সর্বোচ্চ ১৫ বা ১০ টি কলেজ আবেদন করা যাবে। এরপর ভর্তি রেজাল্টে পছন্দের কলেজ না আসলে মাইগ্রেশন করার সুযোগ থাকবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!