জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজসমূহে ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে মাস্টার্স নিয়মিত ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২০-২০২১ আশাকরি জুলাই বা আগষ্টের দিকে প্রকাশিত হবে। কারণ অনার্স চতুর্থ বর্ষের মৌখিক পরীক্ষা এখনও বাকি আছে এবং জানা গেছে এ ভাইভা পরীক্ষা অনলাইনে গ্রহণ করা হবে। সে হিসেবে আনুমানিক জুলাই বা আগষ্টের দিকে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১ প্রকাশিত হতে পারে। ভর্তি যেদিনই শুরু হোক আমরা এখন বিগত বছরের আলোকে মাস্টার্স নিয়মিত ভর্তির ব্যাপারে বিস্তারিত জানবো।

সুপ্রিয় বন্ধুরা! আমরা এই পোষ্ট থেকে জানবো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে মাস্টার্স শেষপর্ব ভর্তির যোগ্যতা, শর্তাবলি, আবেদন পদ্ধতি, চূড়ান্ত ভর্তি পদ্ধতি, ভর্তি হতে যেসব কাগজপত্র লাগবে তা সহ ভর্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্যাবলি। চলুন নিম্নে মাস্টার্স (নিয়মিত) শেষপর্ব প্রোগ্রামে ভর্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্যাবলি জেনে নেই:

মাস্টার্স নিয়মিত ভর্তি যােগ্যতা ২০২১

  • ক) জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত চার বছর মেয়াদী স্নাতক (সম্মান) পরীক্ষায় সনাতন পদ্ধতিতে ন্যূনতম ৪৫% নম্বর অথবা গ্রেডিং ও ক্রেডিট পদ্ধতিতে ন্যূনতম সিজিপিএ ২.২৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে।
  • খ) জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত মাস্টার্স (নিয়মিত) ১ম পর্ব / প্রিলিমিনারী টু মাস্টার্স (নিয়মিত) পরীক্ষায় সনাতন পদ্ধতিতে ন্যূনতম ৪৫% নম্বর অথবা গ্রেডিং ও ক্রেডিট পদ্ধতিতে ন্যূনতম সিজিপিএ ২.২৫ প্রাপ্ত এবং তৎসংশ্লিষ্ট তিন বছর মেয়াদী স্নাতক (পাস) নিয়মিত পরীক্ষায় সনাতন পদ্ধতিতে ন্যূনতম ৪৫% নম্বর অথবা গ্রেডিং ও ক্রেডিট পদ্ধতিতে ন্যূনতম সিজিপিএ ২.২৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে। 
  • গ) তবে চার বছর মেয়াদী স্নাতক (সম্মান) পরীক্ষায় পাস ডিগ্রী প্রাপ্ত কোন শিক্ষার্থী এবং এক বছর মেয়াদী মাস্টার্স (প্রাইভেট) ১ম পর্ব / প্রিলিমিনারী টু মাস্টার্স (প্রাইভেট) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কোন শিক্ষার্থী এ ভর্তি কার্যক্রমে আবেদন করতে পারবে না।
  • ঘ) উপরিউক্ত শর্ত সাপেক্ষে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্স / মাস্টার্স (নিয়মিত) ১ম পর্ব / প্রিলিমিনারি টু মাস্টার্স (নিয়মিত) পরীক্ষায় Anthropology বিষয়ের শিক্ষার্থীরা Sociology বিষয়ে এবং Environmental Science বিষয়ের শিক্ষার্থীরা Geography and Environment বিষয়ে আবেদন করতে পারবে।
  • ঙ) উপরিউক্ত শর্ত সাপেক্ষে Library and Information Science -এ ভর্তির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ডিপ্লোমাধারীরাও আবেদন করতে পারবে।
মাস্টার্স নিয়মিত ভর্তির শর্তাবলি
  • ঘ) জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স (নিয়মিত/প্রাইভেট) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ অথবা অন্য যে কোন প্রােগ্রামে বর্তমানে অধ্যয়নরত কোন শিক্ষার্থী ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে মাস্টার্স (নিয়মিত) প্রোগ্রামে আবেদন করতে পারবে না এবং আবেদনকারীর ফরমে কোন তথ্য/ছবি, অসত্য, ভুল বা অসম্পূর্ণ বলে প্রমাণিত হলে তার ভর্তি বাতিল বলে গণ্য হবে।
  • এ লক্ষ্যে “জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়/অন্য কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে কোন শিক্ষা কার্যক্রমে বর্তমানে আমি ভর্তি/অধ্যয়নরত নই। দ্বৈত ভর্তির ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধান অনুযায়ী উভয় ভর্তি বাতিল সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত আমি মেনে নিতে বাধ্য থাকবাে”- মর্মে আবেদনকারীর স্বাক্ষরিত একটি অঙ্গীকারনামা অনলাইন আবেদনে স্ক্যান করে আপলােড করতে হবে। উক্ত শর্ত ভঙ্গ করে কোন শিক্ষার্থী দ্বৈত ভর্তি হলে তার উভয় ভর্তি বাতিল বলে গণ্য হবে।

মাস্টার্স নিয়মিত প্রোগ্রামে ভর্তির সময়

  • ১ম পর্যায়ে আবেদনের সময়সীমা: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট থেকে আগ্রহী প্রার্থীদের –/১১/২০২১ তারিখ হতে –/১১/২০২১ তারিখের প্রাথমিক আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে।
  • ১ম পর্যায়ে আবেদন ফি ও প্রয়োজনীয় কাগজাদি জমা দেওয়ার শেষ সময়: আবেদন ফরমের প্রিন্ট কপি নিয়ে আবেদন ফি বাবদ ৩০০/- টাকাসহ ফরমে উল্লিখিত কলেজে — নভেম্বর, ২০২১ তারিখের মধ্যে অবশ্যই জমা দিতে হবে।
  • বিষয়ভিত্তিক মেধাতালিকার ফল প্রকাশ : –/১১/২০২১
  • ১ম পর্যায়ে ভর্তির সময়সীমা: ২৬/১১/২০১৯ তারিখ হতে ০৪/১২/২০১৯ তারিখ পর্যন্ত।
  • কোটা মেধাতালিকার ফল প্রকাশ: ১০/১২/২০১৯
  • ১ম মাইগ্রেশন ও ২য় মেধাতালিকার ফল প্রকাশ: –/–/২০১৯
  • ২য় পর্যায়ে ভর্তির সময়সীমা: –/–/— তারিখ হতে –/–/—- তারিখ পর্যন্ত।
  • ২য় মাইগ্রেশন ও কোটা মেধাতালিকার ফল প্রকাশ: –/–/২০২০
  • ১ম রিলিজ স্লিপের ফল প্রকাশ: –/–/—-
  • ২য় রিলিজ স্লিপের ফল প্রকাশ: –/–/—–
  • ক্লাশ শুরুর তারিখ: ০৮/১২/২০১৯

মাস্টার্স নিয়মিত প্রোগ্রামে প্রাথমিক আবেদন পদ্ধতি

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে মাস্টার্স (নিয়মিত) শেষ পর্বে ভর্তির প্রাথমিক আবেদন পাচটি ধাপে সম্পন্ন করতে হয়ে থাকে। আবেদন করার আগে নিম্নোক্ত কাগজপত্র বা তথ্যাদি সাথে রাখুন। প্রাথমিক আবেদন করতে যা যা লাগবে নিম্নরুপ :

  • স্নাতক (সম্মান) অথবা স্নাতক (পাস) ও মাস্টার্স ১ম পর্ব পরীক্ষার রোল নম্বর।
  • স্নাতক (সম্মান) অথবা স্নাতক (পাস) ও মাস্টার্স ১ম পর্ব পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন নম্বর
  • এক কপি পাসপোর্ট সাইয রঙ্গিন ছবি
  • একটি ইমেইল এড্রেস।
  • একটি মোবাইল নম্বর

প্রথম ধাপ : প্রাথমিক আবেদন করতে প্রথমে এই লিংকে ক্লিক করে Masters Tab -এ গিয়ে Apply Now (regular) অপশনে ক্লিক করুন। তারপর আপনি যেখান থেকে পাশ করেছেন, সেটা সিলেক্ট করুন। ক্লিক করার পর যে পেইজ আসবে, সেই পেজে আবেদনকারীর স্নাতক (সম্মান) অথবা স্নাতক (পাস) ও মাস্টার্স ১ম পর্ব পরীক্ষার রোল নম্বর, রেজিস্ট্রেশন নম্বর, বোর্ড এর নাম এবং পরীক্ষা পাসের দিন। তারপর Next বাটনে ক্লিক করুন।

দ্বিতীয় ধাপঃ আবেদনকারীর স্নাতক (সম্মান) অথবা স্নাতক (পাস) ও মাস্টার্স ১ম পর্ব পরীক্ষার তথ্য সঠিক হলে, সে তার স্নাতক (সম্মান) অথবা স্নাতক (পাস) ও মাস্টার্স ১ম পর্ব পরীক্ষার ফলাফলসহ সব তথ্য দেখতে পাবে। এবং নিচের দিকে আবেদনকারীর নামসহ তার পিতা-মাতার নাম, জন্মতারিখ এবং লিঙ্গ অপশন দেওয়া থাকবে, সেই অপশন ভাল করে দেখবেন যে, কি দেওয়া আছে। (ফিমেইল এর স্থলে মেইল দেওয়া থাকলে, ফিমেইল দেওয়া যাবে)।

তৃতীয় ধাপঃ তারপর Next বাটনে ক্লিক করুন। তারপর যে পেজ আসবে, সে পেজের একেবারে বাম দিকের প্রথম কলামে দেখতে পাবেন, Eligible Subject Listদেওয়া। এই তালিকা থেকে আপনি জানতে পারবেন যে, আপনি কি কি বিষয় নিয়ে মাস্টার্স নিয়মিত শেষ পর্বে  পড়তে পারবেন।

তারপর দ্বিতীয় কলাম থেকে আপনাকে কলেজ নির্বাচন করতে হবে (উল্লেখ্য যে, শুধুমাত্র একটি কলেজে আবেদন করতে পারবেন)। এ জন্য আপনাকে প্রথমে বিভাগ নির্বাচন করতে হবে । তারপর জেলা নির্বাচন করতে হবে। এবং সব শেষে নিচের বক্স থেকে কাঙ্ক্ষিত বা ভর্তিচ্ছু কলেজের নাম নির্বাচন করতে হবে। (কলেজটি যে বিভাগ ও জেলায় অবস্থিত, সেসব বিভাগ ও জেলার নাম দিতে হবে)

এরপর আপনি কলামে Subject choice অপশন পাবেন এবং কোন সাব্জেক্টে কত সিত আছে, তাও ডান পাশে দেখতে পাবেন। এখন, আপনি যে সাবজেক্টি প্রথম চয়েজ দিবেন, সেটাতে প্রথমে ক্লিক করুন। তারপর, দুই নম্বরে যে সাবজেক্ট চয়েজ দিবেন, সেটাতে ক্লিক করুন। এভাবে একের পর এক সাবজেক্ট চয়েজ করতে পারবেন। (উল্লেখ্য, সাবজেক্ট চয়েজ খুভ সাবধানে দিবেন) । সাবজেক্ট চয়েজ করা শেষ হলে Next বাটনে ক্লিক করুন।

চথুর্থ ধাপঃ এখন যে পেজ আসবে, তাতে কোটা দেওয়া থাকবে। আপনার যদি কোনো কোটা থাকে, তাহলে Yes অপশনে ক্লিক করে কাঙ্ক্ষিত কোটা সেলেক্ট করুন। আর, যদি কোনো কোটা না থাকে, তাহলে NO অপশনে ক্লিক করুন। তারপর NEXT বাটনে ক্লিক করুন।

পঞ্চম ধাপঃ এখন যে পেজ আসবে, তাতে আবেদনকারীর একটি ছবি, একটি মোবাইল নম্বর এবং একটি ই-মেইল দেওয়া লাগবে। (এখানে ছবিটির উচ্চতা ১৫০ পিক্সেল, প্রস্থ ১২০ পিক্সেল, সাইজ ৫০ কেবি এবং ফরমেট png হতে হবে। আর, আবেদনকারীর মোবাইল নম্বর হলে হতে এবং ই-মেইলও)। 

তারপর preview application এ ক্লিক করে দেখুন যে, আপনার দেওয়া সব তথ্য সঠিক হয়েছে কি না। সব কিছু ঠিকঠাক হলে নিচে থাকা Submit Application এ ক্লিক করুন। তারপর পিডিএফ আকারে একটি ফাইল বা ফরম আসবে, তা ডাউনলোড করুন। দাউনলোড করার পর তা প্রিন্ট করে নিন।

ফরমটি প্রিন্ট করার পর আবেদনকারী ফরমটিতে সাক্ষর দিয়ে নিম্নোক্ত কাগজপত্রসহ আবেদন ফি বাবত ৩০০/- টাকা দিয়ে ভর্তিচ্ছু কলেজে জমা দিতে হবে। 

জমা দেওয়ার পর যদি আপনার মোবাইলে মেসেজ আসে যে, ফরমটি জমা হয়েছে। তাহলে, এই পর্যায়ে প্রথমিক আবেদন করা শেষ হলো। আর, যদি না আসে তাহলে কলেজের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

আবেদন ফরমের সাথে যা যা জমা দিতে হবে
  • আবেদনকারীকে প্রথমে প্রিন্ট করা প্রাথমিক আবেদন ফরমটির নির্ধারিত স্থানে স্বাক্ষর করতে হবে। তারপর,
  • উক্ত আবেদন ফরমের সংগে প্রার্থীর স্নাতক (সম্মান) অথবা স্নাতক (পাস) ও মাস্টার্স ১ম পর্ব পরীক্ষার মূল নম্বরপত্র/মার্কশীট,
  • এবং প্রার্থীর স্নাতক (সম্মান) অথবা স্নাতক (পাস) ও মাস্টার্স ১ম পর্ব পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন কার্ডের সত্যায়িত কপি,
  • এবং আবেদন ফি বাবত ৩০০/- টাকা সংশ্লিষ্ট কলেজে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জমা দিতে হবে। 

আবেদন ফরম জমা দেওয়ার কয়েকদিনের মধ্যে আবেদনকারীকে তার মোবাইল নম্বরে ফলাফল জানিয়ে দেওয়া হবে। আবেদনকারী ভর্তির জন্য নির্বাচিত হলে, সংশ্লিষ্ট কলেজ আবেদনকারীর প্রাথমিক আবেদন Online -এ নিশ্চায়ন করবে। তবে সে সকল আবেদনকারীর মোবাইল নম্বরে SMS -এর মাধ্যমে তা জানিয়ে দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য যেপ্রাথমিক আবেদন নিশ্চায়ন ব্যতীত কোন প্রার্থীই ভর্তির যোগ্য বলে বিবেচিত হবে না। কলেজে আবেদন পত্র জমা দেওয়ার পরে প্রার্থী তার মোবাইল ফোনে SMS না পেলে বুঝতে হবে যে, তার আবেদন ফরম কলেজ কর্তৃক নিশ্চায়ন করা হয়নি। এক্ষেত্রে প্রার্থীকে সংশ্লিষ্ট কলেজে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যোগাযোগ করতে হবে নতুবা মাস্টার্সে ভর্তি হতে পারবে না। 

তবে, প্রাথমিক আবেদন ফরম জমা দেওয়ার পর কলেজ থেকে প্রার্থীর মোবাইলে SMS না আসলে, অনলাইন এর মাধ্যমে জানতে পারবেন যে আপনার আবেদন ফরম কলেজে জমা হয়েছে কি না। তা জানতে এখানে ক্লিক করুন

মাস্টার্স নিয়মিত ফলাফল ও ভর্তি কার্যক্রম

মাস্টার্স (নিয়মিত) প্রোগ্রামে ভর্তি কার্যক্রমে মেধাতালিকায় যার পয়েন্ট বেশি থাকবে, সেই প্রথমে ভর্তির সুযোগ পাবে। আর ভর্তি কার্যক্রম ও ফলাফল ১ম মেরিট, ২য় মেরিট, কোটা মেধাতালিকা, ১ম রিলিজ স্লিপ এবং ২য় রিলিজ স্লিপ এর মাধ্যমে প্রকাশ করা হবে।

মাস্টার্স (নিয়মিত) প্রোগ্রামে চূড়ান্ত ভর্তি পদ্ধতি
  • ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে মাস্টার্স (নিয়মিত) প্রোগ্রামে চূড়ান্ত ভর্তির জন্য প্রার্থীকে এখান থেকে  Masters/phd অপশনে ক্লিক করে applicant Login সিলেক্ট করুন। তারপর Masters Login অপশনে ক্লিক করতে হবে এবং ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত তথ্য ছকে প্রার্থীর রােল নম্বর ও পিন সঠিকভাবে এন্ট্রি দিতে হবে।
  • এরপর আপনি যে কলেজে নির্বাচিত হয়েছেন, তা দেখা যাবে। এবং একইসাথে Application Form নামে একটি অপশন থাকবে, চূড়ান্ত ভর্তির জন্য সেটাতে ক্লিক করতে হবে।
  • তারপর, যে পেজ আসবে তাতে আপনার নাম, পিতার সহ আপনি যে বিষয়ে চান্স পেয়েছেন তা সম্বলিত একটি পেজ আসবে। 
  • সেখানে আপনাকে Nationality এর বক্সে Bangladesh লিখবেন। তারপর, নিজ ধর্ম select করবেন। এরপর, একজন গার্জিয়ান এর নাম দিবেন। তারপর, গার্জিয়ান এর ফোন নম্বর এবং তার বার্ষিক আয় দিবেন। এরপর
  • নিচে একটি লেখা থাকবে যে, Do you want to change your assignment subject on based your preference list? অর্থাৎ আপনি যদি ১ম চয়েজ না পান, তাহলে Yes এ ক্লিক করবেন নতুবা No তে ক্লিক করবেন।
  • এরপর, নিচের দিকে (বাম পাশে) আপনার স্বায়ী এবং(ডান পাশে) বর্তমান ঠিকানা দিবেন। তারপর সবকিছু সঠিক হলে Save Information এ ক্লিক করুন। 
  • তারপর যে পেজ আসবে, সেখান থাকা Download অপশনে ক্লিক করে, ভর্তি ফরম ডাউনলোড করে প্রিন্ট করুন। 
  • এরপর কলেজে উপরিউক্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ ফরমটি জমা দিবেন। 
  • তারপর কলেজ কর্তৃপক্ষ অনলাইনে আপনাকে নিশ্চায়ন করলে আপনার ভর্তির প্রক্রিয়া শেষ হবে।
মাস্টার্স ভর্তি হতে যেসব কাগজপত্র জমা দিতে হবে
  • অললাইন থেকে মূল আবেদন ফর্মের –২ কপি। (একটি কলজ এবং অপরটি স্টুডেন্ট কপি)
  • পাসপোর্ট সাইজের ছবি ৪টি এবং স্ট্যাম্প সাইজ ৪টি পেছনে নাম লিখে দিতে হবে (কলেজভেদে কম বেশি হতে পারে)।
  • স্নাতক (সম্মান/মাস্টার্স প্রিলিমিনারি) পরীক্ষার মূল নম্বরপত্র বা মার্কশিট। 
  • স্নাতক (সম্মান/মাস্টার্স প্রিলিমিনারি) পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন কার্ডের সত্যায়িত ফটোকপি – ২ কপি।
  • দ্বৈত ভর্তির অঙ্গিকারনামা।
  • টাকা জমার রশিদ।
  • কোটার মূল সনদপত্র (যারা মুক্তিযোদ্ধা কোটা, পোষ্য কোটায় আবেদন করেছেন, তাদের জন্য প্রযোজ্য) 
  • চারিত্রিক সনদপত্র (কোন কোন কলেজে লাগতে পারে) – ২ টি।

উল্লেখ্য, সকল কাগজপত্রগুলোকে ২ সেট বানাতে হবে যার এক সেট বিভাগীয় সেমিনারে এবং অন্য সেট অফিসে জমা দিতে হবে। →উক্ত সেটের একটির মধ্যে, ভর্তি ফরমের দুই কপি এবং এর কপিতে রঙ্গিন ছবি লাগাতে হবে। তাছাড়া, স্নাতক (সম্মান) বা মাস্টার্স প্রিলিমিনারি পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন ও মার্কশিটের ফটোকপি দিবেন। →আর অন্যটিতে আবার ভর্তি ফরমের কলেজ কপি, স্নাতক (সম্মান) বা মাস্টার্স প্রিলিমিনারি পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন ও মার্কশিটের উভয়ের পত্রের মূল কপি, ৩-৪ টি ছবি দিতে হবে এবং অন্যান্য কাগজপত্র।

মাস্টার্স শেষপর্ব নিয়মিত প্রোগ্রামের বিভিন্ন কোর্স সমূহ:

মাস্টার্স শেষ পর্ব নিয়মিত প্রোগ্রামে ভর্তি তথ্য ২০১৮-২০১৯ বিজ্ঞপ্তি দেখুন

মাস্টার্স ভর্তি বিজ্ঞপ্তি

Leave a Reply