অনার্স ভর্তি ২০২১

অনার্স ভর্তি ২০২০-২০২১জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি ২০২১ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২০-২০২১ | আপনি যদি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) ১ম বর্ষ বা অনার্স ১ম বর্ষের ভর্তি সম্বন্ধে জানতে চান তাহলে সঠিক জায়গায় এসেছেন। এখানে আপনি অনার্স ভর্তি সম্পর্কিত খুঁটিনাটি সকল তথ্য বিস্তারিত জানতে পারবেন। আপনারা যারা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ভর্তি তথ্য জানতে এসেছেন তাদেরকে জানাই স্বাগতম! চলুন জেনে নেই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স ভর্তি সম্বন্ধ্যে বিস্তারিত তথ্যবলি :

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি ২০২০-২০২১

এই পোষ্ট থেকে যা যা জানতে পারবেন : জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনার্স ভর্তি যোগ্যতা, অনলাইনে প্রাথমিক আবেদন নিয়ম, অনার্স ভর্তি ফলাফল, অনার্স চূড়ান্ত ভর্তি নিয়ম, চূড়ান্ত ভর্তি হতে যেসব কাগজপত্র লাগবে, অনার্স ভর্তি ফি ও বিজ্ঞপ্তি সহ অনার্স ভর্তির বিস্তারিত তথ্যবলি। নিম্নে অনার্স ১ম বর্ষে ভর্তির যোগ্যতা, অনলাইন আবেদন পদ্ধতি এবং ভর্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হলো :

অনার্স ভর্তির গুরুত্বপূর্ণসময় ২০২১
প্রাথমিক আবেদনের সময়২৬ জুলাই হতে ১৮ আগস্ট ২০২১ পর্যন্ত
১ম মেধাতালিকার ফল প্রকাশ১ সেপ্টেম্বর ২০২১ (বিকাল ৪ টা)
১ম পর্যায়ে ভর্তি১১/০৯/২০২১ পর্যন্ত (রাত ১২ টা পর্যন্ত)
২য় মেধাতালিকার ফল প্রকাশ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ (বিকাল ৪ টা)
২য় পর্যায়ে ভর্তি১৯ হতে ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত (বিকাল ৪ টা)
ভর্তি লিংকhttp://app1.nu.edu.bd/

আরও দেখুন : অনার্স ১ম রিলিজ স্লিপে আবেদন সংক্রান্ত বিস্তারিত

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তির সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া (সংক্ষেপ)

এক : জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনার্সে ভর্তি হতে হলে সর্বপ্রথম আবেদন করার যোগ্য হতে হবে। দুই : একজন যোগ্য প্রার্থীকে অবশ্যই নির্দিষ্ট তারিখের মধ্যে পরিপূর্ণভাবে প্রাথমিক আবেদন করতে হবে। তিন : প্রাথমিক আবেদনের পর ১ম মেধাতালিকার ফলাফল প্রকাশ হবে। চার : ১ম মেধাতালিকায় যারা উত্তীর্ণ হবে তাদেরকে অবশ্যই নির্দিষ্ট তারিখের মধ্যে চূড়ান্ত ভর্তির ফরম পূরণ করতে হবে।

পাচ : ভর্তি ফরম পূরণ করা শেষ হলে আলাদাভাবে ভর্তি ফি প্রদান করতে হবে। ছয় : ফি প্রদান করার পর উক্ত ফরমের উপরে RB number এবং সাক্ষরের জায়গায় সাক্ষর দিতে হবে। সাত : এসব করা হয়ে গেলে সংশ্লিষ্ট কলেজে উক্ত ফরম সহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দিতে হবে।

  1. অনার্স প্রফেশনাল ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১
  2. ডিগ্রি ভর্তি ২০২০-২০২১

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি ফলাফল ২০২১

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তির ফলাফল (১ম ও ২য় মেধাতালিকা) প্রকাশিত হয়। প্রাথমিক আবেদন শেষ হওয়ার ৩-৪ দিন পর ভর্তি রেজাল্ট প্রকাশিত হয়। তবে ফলাফল কয়েকটি ধাপে প্রকাশ করা হয়। মেধাতালিকায় যার পয়েন্ট বেশি থাকবে সেই ১ম মেরিটে ভর্তির সুযোগ পাবে। তবে কেউ ১ম মেধাতালিকায় চান্স না পেলে তার জন্য (আসন খালি থাকা সাপেক্ষে) ১ম মাইগ্রেশন ও ২য় মেধা তালিকা এবং রিলিজ স্লিপ রেজাল্ট এর সুযোগ থাকবে। মেধা তালিকায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর যা যা করণীয় তা সহ ২য় মেধাতালিকার ফলাফল দেখুন এখানে

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তির যোগ্যতা ২০২১

  • ১) বাংলাদেশে স্বীকৃত যে কোনো শিক্ষা বোর্ড অথবা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এর মানবিক শাখা থেকে ২০১৭/২০১৮ সালের SSC বা সমমান পরীক্ষায় কমপক্ষে জিপিএ ২.৫০ পয়েন্ট এবং  ২০১৯/২০২০ সালের HSC বা সমমান পরীক্ষায় ৪র্থ বিষয়সহ কমপক্ষে জিপিএ ২.৫০ পয়েন্ট প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা ২০২১ সালের অনার্স ১ম বর্ষে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে।
  • ২) বাংলাদেশে স্বীকৃত যে কোনো শিক্ষা বোর্ড অথবা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এর বিজ্ঞান / ব্যবসায় শিক্ষা শাখা থেকে ২০১৭/২০১৮ সালের SSC বা সমমান পরীক্ষায় কমপক্ষে জিপিএ ৩.০০ পয়েন্ট এবং  ২০১৯/২০২০ সালের HSC বা সমমান পরীক্ষায় আলাদাভাবে ৪র্থ বিষয়সহ কমপক্ষে জিপিএ ২.৫০ পয়েন্ট প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা ২০২১ সালের অনার্স ১ম বর্ষে আবেদন করতে পারবে।
  • ৩) আবেদনকারীর HSC / সমমান শ্রেণির পঠিত বিষয়সমূহ থেকে ভর্তি যোগ্য (Eligible) বিষয় নির্ধারন করা হবে। উক্ত পঠিত বিষয়ে (২০০ নম্বরের মধ্যে) ন্যূনতম গ্রেড পয়েন্ট ৩.০০ থাকতে হবে।
শাখা / গ্রুপএসএসসি ২০১৭/২০১৮এইচএসসি ২০১৯/২০২০
মানবিক2.50 2.50
ব্যবসায় শিক্ষা3.00 2.50
বিজ্ঞান3.00 2.50
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তির ন্যূনতম যোগ্যতা

  • ৪) বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের শুধুমাত্র ১) HSC ভোকেশনাল ২) HSC বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ৩) ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স কোর্স থেকে উত্তীর্ণ প্রার্থীরা ২ নং শর্ত সাপেক্ষে এ ভর্তি কার্যক্রমে আবেদন করতে পারবে।
  • ৫) বিদেশী সার্টিফিকেটধারী আবেদনকারীদের ক্ষেত্রেও বাংলাদেশ -এ স্বীকৃত যে কোন শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক তাদের অর্জিত SSC ও HSC পর্যায়ের নম্বর পত্রের সমতা নিরুপণ করা হলে, তারাও ভর্তির জন্য প্রাথমিক আবেদন করতে পারবে। তবে এক্ষেত্রে আবেদনকারীকে ভর্তি নির্দেশিকার সকল শর্ত পূরণ করতে হবে।
  • ৬) আবেদনকারীকে ২০১৭/২০১৮ সালের O-level পরীক্ষায় কমপক্ষে ৩টি বিষয়ে B গ্রেডসহ অন্তত ০৪ টি বিষয়ে উত্তীর্ণ এবং ২০১৯/২০২০ সালের A-level পরীক্ষায় ০১টি বিষয়ে B গ্রেডসহ অন্তত ০২টি বিষয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে। তবে এক্ষেত্রে আবেদনকারীকে ভর্তি নির্দেশিকার অন্যান্য সকল শর্ত পূরণ করতে হবে। এ সকল প্রার্থীদের ডীন, স্নাতকপূর্ব শিক্ষাবিষয়ক স্কুল, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি যোগাযোগ করতে হবে।

আরও পড়ুন : উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যাল্লয় ডিগ্রি ভর্তি ২০২১

অনার্স ১ম বর্ষে ভর্তির গুরুত্বপূর্ণ তারিখ ২০২১

  • ১ম পর্যায়ে আবেদনের সময় :  ২৮/০৭/২০২১ তারিখ হতে ১৮/০৮/২০২১ তারিখ পর্যন্ত
  • মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে ফি দেয়ার সময় :  ২৯/০৭/২০২১ হতে ১৯/০৮/২০২১ পর্যন্ত
  • কলেজ কর্তৃক নিশ্চায়নের সময় :  ২৯/০৭/২০২১ তারিখ হতে ২১/০৮/২০২১ তারিখ পর্যন্ত
  • ১ম মেরিটের ফলাফল প্রকাশ  :  ০১/০৯/২০২১ বিকাল ৪;০০ টায়
  • ১ম পর্যায়ে ভর্তির সময়  :  ০১/০৯/২০২১ তারিখ হতে ১১/০৯/২০২১ তারিখ পর্যন্ত
  • ১ম মাইগ্রেশন ও ২য় মেধা তালিকার ফল প্রকাশ  :  ১৮/০৯/২০২১
  • ২য় পর্যায়ে ভর্তির সময়  :  –/–/২০২১ তারিখ হতে –/–/২০২১ তারিখ পর্যন্ত
  • ২য় মাইগ্রেশন ও কোটা মেধাতালিকার ফল প্রকাশ :  –/–/২০২১
  • ১ম রিলিজ স্লিপে আবেদনের সময় : –/–/২০২১ তারিখ হতে –/–/২০২১ তারিখ পর্যন্ত
  • ১ম রিলিজ স্লিপের ফল প্রকাশ  :  –/–/২০২১
  • ২য় রিলিজ স্লিপে আবেদনের সময় :   –/–/২০২১ তারিখ হতে –/–/২০২১ তারিখ পর্যন্ত
  • ২য় রিলিজ স্লিপের ফল প্রকাশ  :  –/–/২০২১
  • অনলাইন ক্লাস শুরুর তারিখ :  ১৫/০৯/২০২১

অনার্স ১ম বর্ষে ভর্তি প্রক্তিয়া ২০২০-২০২১

  • জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনার্স ১ম বর্ষে ভর্তির জন্য শিক্ষার্থীকে প্রথমে প্রাথমিক আবেদন করতে হবে। প্রাথমিক আবেদনে শিক্ষার্থী নির্বাচিত হলে, সে অনার্স ১ম বর্ষের জন্য চূড়ান্ত ভর্তির ফরম তুলতে পারবে।
  • ভর্তি পরীক্ষা ছাড়াই এসএসসি ও এইচএসসি ফলাফলের ভিত্তিতে ছাত্রছাত্রী ভর্তি করানো হবে। প্রতিটি কলেজের জন্য আলাদাভাবে মেধা তালিকা তৈরী করে পরীক্ষার্থীদের পছন্দক্রম অনুযায়ী ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির বিষয় বরাদ্দ দেয়া হবে।
  • একই প্রতিষ্ঠান/কলেজে একই বিষয়ে দুই বা ততোধিক আবেদনকারীর প্রাপ্ত ফলাফল একই হলে, সে ক্ষেত্রে সকল আবেদনকারীকে পর্যায়ক্রমে চতুর্থ বিষয়সহ SSC ও HSC পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ এর যথাক্রমে ৪০% ও ৬০% এবং প্রয়োজন হলে SSC ও HSC পরীক্ষার মোট প্রাপ্ত নম্বরের যথাক্রমে ৪০% ও ৬০% এর ভিত্তিতে মেধা তালিকা প্রকাশ করা হবে।
  • এর পরেও যদি দুই বা ততোধিক আবেদনকারীর প্রাপ্ত ফলাফল একই হয়, তা হলে যার বয়স কম হবে তাকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

অনার্স ১ম বর্ষে ভর্তি কার্যক্রমের আবেদন ফি ২৫০/- টাকা কলেজ কর্তৃক নির্ধারিত মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে প্রদান করতে হবে। বি.দ্র. আবেদন ফরমে কোনো ভুল থাকলে, আবেদনকারী তা Cancel করে নতুন করে আবেদন করতে পারবে। তবে ১ বারের বেশি Cancel করা যাবেনা। আর, কলেজ কর্তৃক আবেদন ফরমটি নিশ্চিত হলে, তা আর Cancel করা যাবে না। প্রার্থী/আবেদনকারী শুধুমাত্র ১টি কলেজে আবেদন করতে পারবে।

অনার্স ভর্তির প্রাথমিক আবেদন নিয়ম

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনার্স ১ম বর্ষে ভর্তির প্রাথমিক আবেদন পাচটি ধাপে সম্পন্ন করতে হয়ে থাকে। আবেদন করার আগে নিম্নোক্ত কাগজপত্র বা তথ্যাদি সাথে রাখুন। প্রাথমিক আবেদন করতে যা যা লাগবে নিম্নরুপ :

আরও দেখুন : খুটিনাটি সহ অনার্স ভর্তির প্রাথমিক আবেদন নিয়ম দেখুন এবং যেভাবে আবেদন করলে চান্স হবে

  • SSC বা সমমান (দাখিল, ভোকেশনাল) পরীক্ষার রোল ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর
  • HSC বা সমমান (আলিম, ভোকেশনাল) পরীক্ষার রোল ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর
  • এক কপি রঙ্গিন ছবি (১২০ বাই ১৫০ পিক্সেল, সাইয ৫০ kb)
  • একটি ইমেইল এড্রেস ও একটি মোবাইল নম্বর

প্রথম ধাপ : অনার্স ১ম বর্ষে ভর্তির জন্য প্রাথমিক আবেদন করতে এখানে ক্লিক করুন। এবার SSC ও HSC পরীক্ষার রোল নম্বর, রেজিঃ নম্বর, বোর্ড ও পাসের সন দিয়ে Next বাটনে ক্লিক করুন।

দ্বিতীয় ধাপ : এই ধাপে আবেদনকারী তার SSC ও HSC পরীক্ষার ফলাফলসহ সব তথ্য দেখতে পাবে এবং নিচের দিকে গেলে আবেদনকারীর নামসহ তার পিতা-মাতার নাম, জন্মতারিখ এবং লিঙ্গ অপশন দেয়া থাকবে, সেই অপশন ভাল করে দেখবেন যে কি দেওয়া আছে। (এখানে কোনো ভুল হলে অবশ্যই সঠিক লিঙ্গ দিবেন) তারপর Next বাটনে ক্লিক করুন।

তৃতীয় ধাপ :  তারপর যে পেজ আসবে সে পেজের একেবারে বাম দিকের প্রথম কলামে দেখতে পাবেন Eligible Subject List (অর্থাৎ যেসব বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু আছে তা) দেওয়া আছে। এই তালিকা থেকে আপনি জানতে পারবেন যে, আপনি কি কি বিষয় নিয়ে অনার্স এ পড়তে পারবেন।

তারপর দ্বিতীয় কলাম থেকে আপনাকে কলেজ নির্বাচন করতে হবে (উল্লেখ্য যে, শুধুমাত্র একটি কলেজে আবেদন করতে পারবেন) কলেজ সিলেক্ট করতে আপনাকে প্রথমে বিভাগ নির্বাচন করতে হবে। তারপর জেলা নির্বাচন করতে হবে (অবশ্য আপনি যে কলেজ চয়েজ দিতে চান সেই কলেজ যে বিভাগ ও জেলায় অবস্থিত, আপনাকে সেসব বিভাগ ও জেলার নাম দিতে হবে) এবং সব শেষে নিচের বক্স থেকে কাঙ্ক্ষিত বা ভর্তিচ্ছু কলেজের নাম নির্বাচন করতে হবে।

এরপর দ্বিতীয় কলামে আপনি Subject choice করার অপশন পাবেন এবং কোন বিষয়ে কতটি সিট আছে, তাও ডান পাশে দেখতে পাবেন। এখন আপনি যে সাবজেক্টি প্রথম চয়েজ দিবেন, সেটাতে প্রথমে ক্লিক করুন। তারপর, দুই নম্বরে যে সাবজেক্ট চয়েজ দিবেন সেটাতে ক্লিক করুন। এভাবে একের পর এক সাবজেক্ট চয়েজ করতে পারবেন। (উল্লেখ্য সাবজেক্ট চয়েজ খুভ সাবধানে দিবেন)। সাবজেক্ট চয়েজ করা শেষ হলে Next বাটনে ক্লিক করুন।

চথুর্থ ধাপ : এখন যে পেজ আসবে তাতে কোটা দেয়া থাকবে। আপনার যদি কোনো কোটা থাকে তাহলে Yes অপশনে ক্লিক করে কাঙ্ক্ষিত কোটা সিলেক্ট করূন। এখন যে পেজ আসবে তাতে কোটা দেয়া থাকবে। আপনার যদি কোনো কোটা থাকে তাহলে Yes অপশনে ক্লিক করে কাঙ্ক্ষিত কোটা সিলেক্ট করূন।

পঞ্চম ধাপ : এই পর্যায়ে আবেদনকারীর একটি ছবি, একটি মোবাইল নম্বর এবং একটি ই-মেইল প্রদান করুন। (তবে ছবিটি  ১৫০ পিক্সেল উচ্চতা, ১২০ পিক্সেল প্রস্থ এবং সাইজ ৫০ কেবি সহ png ফরম্যাটে হতে হবে) তারপর preview application অপশনে ক্লিক করে দেখুন আপনার দেওয়া তথ্য ঠিকটাক আছে কিনা। আপনি নিশ্চিত হলে নিচে থাকা Submit Application অপশনে ক্লিক করুন। তারপর pdf আকারে একটি ফাইল (ফরম) আসবে সেটা ডাউনলোড করে প্রিন্ট করে নিন।

ফরমটি প্রিন্ট করার পর আবেদনকারী ফরমটিতে সাক্ষর দিয়ে নিম্নোক্ত কাগজপত্র সহ আবেদন ফি ২৫০ টাকা ভর্তিচ্ছু কলেজে জমা দিতে হবে। কলেজে এইসব জমা দেয়ার পর যদি আপনার আবেদন ফরমে দেওয়া নম্বরে একটি মেসেজ আসে যে ফরম জমা হয়েছে তখন আপনার আবেদন সম্পূর্ণ হবে। আর যদি না আসে তাহলে অবশ্যই কলেজের সাথে যোগাযোগ করুন।

আবেদনকারীকে প্রথমে প্রিন্ট করা প্রাথমিক আবেদন ফরমটির নির্ধারিত স্থানে স্বাক্ষর করতে হবে। তারপর উক্ত আবেদন ফরমের সাথে প্রার্থীর SSC ও HSC / সমমান পরিক্ষার সত্যায়িত নম্বরপত্র/মার্কশীট এর ফটোকপি এবং প্রার্থীর SSC ও HSC / সমমান পরিক্ষার রেজিস্ট্রেশন কার্ডের ফটোকপি, এবং আবেদন ফি বাবত ২৫০/- টাকা সংশ্লিষ্ট কলেজে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জমা দিতে হবে।

বিশেষ দ্রষ্টব্য (২০২১) : করোনা মহামারির কারণে প্রাথমিক আবেদন করার পর কোনো কাগজপত্র সংশ্লিষ্ট কলেজে জমা দিতে হবে না। শুধু সংশ্লিষ্ট কলেজ কর্তৃক প্রদত্ত মোবাইল নম্বরে ২৫০/- টাকা প্রদান করলেই হবে। তবে আবেদন ফরমটি সংরক্ষণ করে রাখতে হবে।

আরও পড়ুন :  জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২১

প্রাথমিক আবেদন করার পর করণীয়

প্রাথমিক আবেদন করার পর কিছুই করতে হবে না। তবে প্রাথমিক আবেদনের ফি জমা দেওয়ার পর কলেজ থেকে যদি প্রার্থীর মোবাইলে SMS না আসে তাহলে অনলাইনের মাধ্যমে জানতে পারবেন যে আপনার আবেদনের ফি কলেজে জমা হয়েছে কি না। তা দেখতে এখানে ক্লিক করুন

আবেদন ফরম জমা দেওয়ার কয়েকদিনের মধ্যে আবেদনকারী ভর্তির জন্য নির্বাচিত হলে সংশ্লিষ্ট কলেজ আবেদনকারীর প্রাথমিক আবেদন Online -এ নিশ্চায়ন করবে এবং সে সকল আবেদনকারীর মোবাইল নম্বরে SMS এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য যে, প্রাথমিক আবেদন নিশ্চায়ন ব্যতীত কোন প্রার্থীই ভর্তির যোগ্য বলে বিবেচিত হবে না। কলেজে আবেদনের ফি জমা দেওয়ার পরে প্রার্থী তার মোবাইল ফোনে SMS না পেলে বুঝতে হবে যে, তার আবেদন কলেজ কর্তৃক নিশ্চায়ন করা হয়নি। এক্ষেত্রে প্রার্থীকে সংশ্লিষ্ট কলেজে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যোগাযোগ করতে হবে অথবা অনলাইনে চেক করে নিতে হবে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স চূড়ান্ত ভর্তির নিয়ম

২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ১ম বর্ষের চূড়ান্ত ভর্তির জন্য প্রার্থীকে এখান থেকে (Honours Tab -এ থেকে) Honours applicant’s Login -এ ক্লিক করে (ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত তথ্য ছকে) প্রার্থীর রােল নম্বর ও পিন সঠিকভাবে এন্ট্রি দিয়ে Login করুন। এরপর Admission Information নামে একটি পেইজ তথা আপনি যে কলেজে নির্বাচিত হয়েছেন, তা দেখতে পাবেন। এবং একইসাথে Application Form নামে একটি অপশন থাকবে, চূড়ান্ত ভর্তির জন্য সেটাতে ক্লিক করতে হবে।

তারপর, যে পেজ আসবে তাতে আপনার নাম, পিতার সহ আপনি যে বিষয়ে চান্স পেয়েছেন তা সম্বলিত একটি পেজ আসবে। সেখানে আপনাকে Nationality এর বক্সে Bangladeshi লিখবেন। তারপর, নিজ ধর্ম select করবেন। এরপর, একজন গার্জিয়ান এর নাম দিবেন। তারপর, গার্জিয়ান এর ফোন নম্বর এবং তার বার্ষিক আয় দিবেন।

এরপর নিচে একটি লেখা থাকবে যে, Do you want to change your assignment subject on based your preference list? অর্থাৎ আপনি যদি ১ম চয়েজ না পান তাহলে Yes এ ক্লিক করবেন নতুবা No তে ক্লিক করবেন। এরপর নিচের দিকে (বাম পাশে) আপনার স্বায়ী এবং (ডান পাশে) বর্তমান ঠিকানা দিবেন। তারপর সবকিছু সঠিক হলে Save Information এ ক্লিক করুন।

তারপর যে পেজ আসবে, সেখান থাকা Download অপশনে ক্লিক করে, ভর্তি ফরম ডাউনলোড করে প্রিন্ট করুন। একটি থাকবে কলেজ কপি এবং একটি থাকবে স্টুডেন্ট কপি। এরপর কলেজে উপরিউক্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ ফরমটি জমা দিবেন। তারপর কলেজ কর্তৃপক্ষ অনলাইনে আপনাকে নিশ্চায়ন করলে আপনার ভর্তির প্রক্রিয়া শেষ হবে।

আরও পড়ুন : উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যাল্লয় অনার্স ভর্তি ২০২১

অনার্স (চূড়ান্ত) ভর্তি হতে যেসব কাগজপত্র লাগবে
  • অনলাইনে পূরণকৃত মূল আবেদন ফরম – ২ কপি (একটি কলেজ কপি এবং অন্যটি স্টুডেন্ট কপি)
  • পাসপোর্ট সাইজ ছবি ৪টি এবং পেছনে নাম লিখে দিতে হবে (কলেজভেদে কম বেশি হতে পারে)।
  • SSC বা সমমান পরীক্ষার মূল নম্বরপত্র বা মার্কশিট – মূলকপি সহ ফটোকপি ২ টি
  • HSC বা সমমান পরীক্ষার মূল নম্বরপত্র বা মার্কশিট – মূলকপি সহ ফটোকপি ২ টি
  • SSC বা সমমান পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন কার্ডের সত্যায়িত ফটোকপি – ২ কপি।
  • HSC বা সমমান পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন কার্ডের সত্যায়িত ফটোকপি – ২ কপি।
  • পাঠ বিরতি বা শিক্ষা বিরতি সনদপত্র। (২০১৯ সালে এইচএসসি পাশ করছে শুধু তাদের জন্য)
  • কোটার সনদপত্র যারা মুক্তিযোদ্ধা, পোষ্য কোটায় আবেদন করছেন তাদের জন্য প্রযোজ্য।
অনার্স (চূড়ান্ত) ভর্তি হতে কত ফি লাগবে

আপনি যদি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে সরকারি কোনো কলেজে ভর্তি হোন তাহলে সর্বনিম্ন ৪০০০/- টাকা এবং সর্বোচ্চ ৫০০০/- টাকা লাগবে আর যদি কোনো বেসরকারি কলেজে ভর্তি হতে চান তাহলে সর্বনিম্ন ৭০০০/- টাকা এবং সর্বোচ্চ ২০,০০০/- টাকা লাগতে পারে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২০-২০২১

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১ p-1
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১ p-1
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১ p-2
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১ p-2
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১ p-3
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১ p-3

বিবিধ

  • আবেদন ফরমে শিক্ষার্থীর কোন তথ্য অসত্য, ভুল বা অসম্পুর্ণ বলে প্রমানিত হলে, তার আবেদন ফরম/চুড়ান্ত ভর্তি বাতিল করার অধিকার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সংরক্ষণ করে।
  • এই ভর্তি কার্যক্রমের যে ধারা/নিয়মাবলীর সংশোধন, সংযোজন, পরিবর্তন বা বাতিল জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সংরক্ষণ করে।
  • একই শিক্ষাবর্ষের কোনপ্রার্থী দ্বৈত ভর্তি হলে তা বাতিল করার অধিকার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সংরক্ষণ করে।

আরও পড়ুন

547 thoughts on “অনার্স ভর্তি ২০২১”

  1. ভর্তি ফরম (কলেজ কপি) সঠিক সময়ে ডাউনলোড করতে না পারার কারনে ভর্তি হতে পারলাম না। এমতাবস্থায় করণীয় কি? জানালে উপকৃত হতাম।

    1. যদি আবেদন করার পরই ফরম ডাউনলোড না করো। তাহলে applicant login এ ক্লিক করে রোল ও পাসওয়ার্ড দিয়ে প্রবেশ করে, admit card থেকে ফরম ডাউনলোড করতে পারবে।

    2. স্বপন

      আমি প্রথম মেরিটে চান্স পেয়েছি কিন্তু ভর্তি কনফার্ম করিনি, এখন কি তৃতীয় মেরিটে আবেদন করতে পারবো?

      1. না, ২য় বা ৩য় মেরিটে তো শুধু রেজাল্ট প্রকাশিত হয়। আবেদন করা যায় না। তাই আপনাকে একদম রিলিজ স্লিপের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। তাহলে আপনি নতুন করে আবেদন করতে পারবেন।

  2. Ananna Khan

    ভাইয়া, আমার ১ম ও ২য় মেরিট লিস্ট কোনোটাতেই নাম আসেনি। এখন আমি করবো? আমি কি রিলিজ সিল্প তুলবো? প্লিজ ভাইয়া আমাকে একটু হেল্প করুন।

    1. হ্যা, অবশ্যই। ১ম রিলিজ স্লিপে পছন্দমত যেকোনো ৫ টি কলেজে (আসন খালি থাকা সাপেক্ষে) আবেদন করতে পারবে।

      1. Ananna Khan

        আচ্ছা ভাইয়া! পূর্ববর্তী কলেজে আবেদন করতে পারবো না? আমি পূর্ববর্তী কলেজে ভর্তি হতে ইচ্ছুক অন্য কোনো কলেজে না। আর ভাইয়া! আরেকটা বিষয় জানার ছিলো, প্রথম রিলিজ স্লিপে পছন্দ অনযায়ী সাবজেক্ট না পেলে সেক্ষেত্রে কি করণীয় হতে পারে ভাইয়া? বিষয়টি যদি একটু বুঝিয়ে বলতেন তাহলে আমার জন্য ভালো হয়।

        1. পূর্ববর্তী কলেজে যদি আসন খালি থাকে তাহলে আবেদন করতে পারবে। তাছাড়া পূর্ববর্তী কলেজে আসন খুভ কম মানে ৪-৫ টা থাকলে আর পয়েন্ট তেমন ভালো না হলে আবেদন না করাই ভালো। আর রিলিজ স্লিপে গিয়ে পছন্দমত সাবজেক্ট না পেলে কিছু করার নেই। তবে একটা কাজ করা যেতে পারে, ১ম রিলিজ স্লিপে ভর্তি না হয়ে ২য় রিলিজ স্লিপে আবার পছন্দের সাবজেক্ট চয়েজ দিয়ে আবেদন করা, যা কিনা অনেক রিস্ক হয়ে যায়। তাই ১ম রিলিজ স্লিপে যে সাবজেক্ট পাবে তাতেই ভর্তি হয়ে যাওয়া বেশ ভালো। আরও বিস্তারিত জানতে এই লিংকে (অনার্স ১ম রিলিজ স্লিপে আবেদন পদ্ধতি) চোখ রাখবে। কয়েক দিনের মধ্যে এটাতে রিলিজ স্লিপের আবেদন নিয়ে বিস্তারিত লিখব।

          1. Ananna Khan

            জ্বী ভাইয়া, প্রয়োজনীয় তথ্য বুঝিয়ে বলার জন্য উপকৃত হলাম। ধন্যবাদ ভাইয়া।

  3. ফরহাদ

    রিলিজ স্লিপে আবেদন করার তারিখ কখন?

    1. দেরি আছে। কোটা মেধাতালিকার ভর্তি কার্যক্রম শেষ হওয়ার পর দিবে।

  4. দ্বিতীয় মেরিট লিস্টে চান্স পাওয়ার পর আবেদন ফরম পূরণ করে কলেজে জমা দিয়েছি। অর্থাৎ ভর্তি চূড়ান্ত হয়েছে। এখন কি গার্ডিয়ান এর নাম এবং ম্যারিটাল স্ট্যাটাস চেঞ্জ করার কোন উপায় আছে কি? থাকলে সেটা কিভাবে?

    1. আমি শিওর না যে, লিঙ্গ পরিবর্তন করা ছাড়া চূড়ান্ত ভর্তির ফরম সংশোধন করা যাবে। তবে আপনি এই আর্টিকেল (জাতীয় বিশ্বিবদ্যালয়ে অনার্স ভর্তির আবেদন নিয়ম এর নিচের দিকে গিয়ে দেখুন আবেদন সংশোধন করার নিয়ম বলা আছে। যদিও এখানে আবেদন সংশোধন করার নিয়ম দেখিয়ে দেওয়া আছে কিন্তু আপনি ঐ একই সিস্টেমে আপনার চূড়ান্ত ভর্তির ফরমও সংশোধন হয়ত করতে পারবেন। তবে মনে রাখবেন সংশোধন সর্বোচ্চ একবার করতে পারবেন।

  5. আমি প্রথম মেরিট আবেদন করেছি কিন্তু চান্স পাই নাই। তারপর দ্বিতীয় মেরিট আবেদন করতে পারি নাই এখন কি করব?

    1. আরে ভাই ২য় মেরিটে আবেদন করতে হয় না। এমনি রেজাল্ট দেয়। আপনি চেক করুন যে রেজাল্ট কী আসছে?

  6. কোঠা তালিকা কবে প্রকাশ হবে? আর কোঠা তালিকায় আবেদনকারীদের মেধা তালিকায় নাম আসার কোন সম্ভাবনা আছে?

    1. কোটা মেধাতালিকার ফলাফল আনুমানিক ৫-৮ অক্টোবর এর মধ্যে প্রকাশিত হতে পারে। আর কোটা মেধাতালিকায় যারা কোটায় আবেদন করেছে এবং যারা ২য় মেধা তালিকায় মাইগ্রেশন করেছে শুধু তাদের ফলাফল বের হবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!