ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি তথ্য ২০২২-২০২৩ বিস্তারিত দেখুন

আমি এখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি তথ্য ২০২২-২০২৩ সংক্রান্ত বিস্তারিত খুঁটিনাটি তথ্য তুলে ধরব। আপনাকে যদি তা জানতে চান তাহলে আপনাকে স্বাগতম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২২-২০২৩ শিক্ষাবর্ষে আন্ডারগ্র্যাজুয়েট (অনার্স) প্রোগ্রামে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে।

আপনি কি মাত্র ৭০ হাজার টাকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে চান? তাহলে এখনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার প্রিপারেশন শুরু করে নিন। তাহলে চলুন বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক :

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির টাইমলাইন ২০২৩

আবেদন শুরু ২৭ ফেব্রুয়ারি, বিকাল ০৪ টা হতে
আবেদন চলবে ২০ মার্চ, রাত ১১:৫৯ মিঃ পর্যন্ত
আবেদন ফি ১০০০/- টাকা
ভর্তি পরীক্ষা শুরু ২৯ এপ্রিল ২০২৩ হতে
আসন সংখ্যা (অনার্স)  ৬১১০ টি (২০২৩)

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি যোগ্যতা ২০২২-২০২৩

২০১৭ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত SSC বা সমমান এবং ২০২২ সনের HSC বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে যারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন ইউনিটে ভর্তির জন্য নির্ধারিত শর্ত পূরণ করে কেবল তারাই ২০২২-২০২৩ শিক্ষাবর্ষে আন্ডারগ্র্যাজুয়েট (অনার্স) প্রোগ্রামে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে।

শিক্ষার্থীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ০৪ (চার) টি ইউনিটে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। ইউনিট ভিত্তিক বিস্তারিত ভর্তি তথ্য নিম্নোক্ত লিংক থেকে দেখতে পারবেন :

বিজ্ঞান ইউনিট

বিজ্ঞান / কৃষিবিজ্ঞান শাখায় HSC বা আলিম অথবা IGCSE/O Level বা IAL/GCE A Level পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের (৪র্থ বিষয়সহ) SSC ও HSC বা সমমানের পরীক্ষায় জিপিএ-দ্বয়ের যোগফল ন্যূনতম ৮.০০ এবং উভয় পরীক্ষায় আলাদাভাবে ন্যূনতম ৩.৫ আছে তারা ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে।

এছাড়া HSC বা আলিম পরীক্ষায় মানবিক ও বানিজ্য শাখার শিক্ষার্থীরাও এই ইউনিটে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। সেক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর উভয় পরীক্ষায় (৪র্থ বিষয়সহ) জিপিএ-দ্বয়ের যোগফল ন্যূনতম ৭.৫ এবং আলাদাভাবে ন্যূনতম ৩.০ থাকতে হবে।

কলা, আইন ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিট

মানবিক শাখায় HSC বা আলিম অথবা IGCSE/O Level বা IAL/GCE A Level পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থী যাদের (৪র্থ বিষয়সহ) SSC ও HSC বা সমমানের পরীক্ষায় জিপিএ-দ্বয়ের যোগফল ন্যূনতম ৭.৫ এবং উভয় পরীক্ষায় আলাদাভাবে ন্যূনতম ৩.০০ আছে তারা ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে।

এছাড়া HSC বা আলিম পরীক্ষায় বিজ্ঞান ও বানিজ্য শাখার শিক্ষার্থীরাও এই ইউনিটে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। সেক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর উভয় পরীক্ষায় (৪র্থ বিষয়সহ) জিপিএ-দ্বয়ের যোগফল বিজ্ঞান শাখার জন্য ন্যূনতম ৮.০ ও আলাদাভাবে ন্যূনতম ৩.৫ এবং বানিজ্য শাখার জন্য ন্যূনতম ৭.৫ ও আলাদাভাবে ন্যূনতম ৩.০ থাকতে হবে।

ব্যবসায় শিক্ষা ইউনিট

HSC পরীক্ষার ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় অথবা IGCSE/O Level বা IAL/GCE A Level পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের (৪র্থ বিষয়সহ) SSC ও HSC বা সমমানের পরীক্ষায় জিপিএ-দ্বয়ের যোগফল ন্যূনতম ৭.৫ ও আলাদাভাবে ন্যূনতম ৩.০ আছে তারা ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে।

এছাড়া HSC বা আলিম পরীক্ষায় বিজ্ঞান ও মানবিক শাখার শিক্ষার্থীরাও এই ইউনিটে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। সেক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর উভয় পরীক্ষায় (৪র্থ বিষয়সহ) জিপিএ-দ্বয়ের যোগফল বিজ্ঞান শাখার জন্য ন্যূনতম ৮.০ ও আলাদাভাবে ন্যূনতম ৩.৫ এবং মানবিক শাখার জন্য ন্যূনতম ৭.৫ ও আলাদাভাবে ন্যূনতম ৩.০ থাকতে হবে।

চারুকলা ইউনিট

SSC ও HSC বা সমমানের পরীক্ষার যে কোন শাখা হতে উত্তীর্ণ প্রার্থী যাদের উভয় পরীক্ষায় (৪র্থ বিষয়সহ) জিপিএ-দ্বয়ের যোগফল ন্যূনতম ৬.৫ এবং আলাদাভাবে উভয় পরীক্ষায় ন্যূনতম ৩.০ আছে চারুকলা ইউনিটে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে।

আরও দেখুন :  পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি যোগ্যতা

IGCSE/O Level এবং IAL/GCE A Level প্রার্থী (সকল ইউনিটের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য)

১। ২০১৭ সন থেকে ২০২০ সন পর্যন্ত IGCSE / O Level পরীক্ষায় অন্তত ৫টি বিষয়ে এবং ১০ মে, ২০২২ সনের পরে ফল প্রকাশিত IAL/GCE A Level পরীক্ষায় অন্তত ২টি বিষয়ে উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। তাদের IGCSE/O Level এবং IAL / GCE A Level মোট ৭টি বিষয়ের মধ্যে যথাক্রমে ৪টি বিষয়ে কমপক্ষে বি-গ্রেড ও ৩টি বিষয়ে কমপক্ষে সি- গ্রেড থাকতে হবে।

২। সমমানের বিদেশী সার্টিফিকেট/ডিপ্লোমাধারী প্রার্থীরা সংশ্লিষ্ট ইউনিট প্রধানের অনুমতি সাপেক্ষে আবেদন করতে পারবে। তবে সংশ্লিষ্ট অনুষদ কর্তৃক সমতা নিরূপিত হলেই কেবল তারা ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। এ ছাড়াও সকল প্রার্থীকে সংশ্লিষ্ট ইউনিট কর্তৃক নির্ধারিত অন্যান্য শর্ত পূরণ করতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির আবেদন

যেকোন ইউনিটে ভর্তির আবেদন https://admission.eis.du.ac.bd ওয়েব সাইট থেকে করা যাবে। ভর্তির আবেদনের জন্য শিক্ষার্থীর উচ্চমাধ্যমিক এবং মাধ্যমিকের তথ্য, বর্তমান ঠিকানা ও মোবাইল নম্বর, পিতা/মাতার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর (ঐচ্ছিক), শিক্ষার্থী যে বিভাগীয় শহরের কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে আগ্রহী, কোটা এবং স্ক্যান করা একটি ছবির প্রয়োজন পড়বে।

ভর্তির আবেদন ফি তাৎক্ষনিক অনলাইনে বা চারটি রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাংকে (সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী) নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে জমা প্রদান করা যাবে। আবেদন ফি অফেরৎযোগ্য। আবেদন ও ফি জমার বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য উক্ত ওয়েব সাইটে পাওয়া যাবে।

সমতা নিরূপনের জন্য : এ-লেভেল/ও-লেভেল/সমমান বিদেশী পাঠক্রমে বা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় হতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সমতা নিরূপনের জন্য https://admission.eis.du.ac.bd ওয়েব সাইটে গিয়ে “সমমান আবেদন” বা “Equivalence Application” মেনুতে আবেদন করে তাৎক্ষনিকভাবে অনলাইনে নির্ধারিত ফি জমা দিতে হবে। সমতা নিরূপনের পর প্রাপ্ত “Equivalence ID” ব্যবহার করে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মত তারা একই ওয়েবসাইটে লগইন করে ভর্তি পরীক্ষার জন্য আবেদন করতে পারবে।

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার তারিখ

ইউনিট তারিখ সময়
চারুকলা ২৯ এপ্রিল ২০২৩ সকাল ১১ টা
মানবিক ০৬ মে ২০২৩ সকাল ১১ টা
বিজ্ঞান ১২ মে ২০২৩ সকাল ১১ টা
ব্যবসায় ১৩ মে ২০২৩ সকাল ১১ টা

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার মানবন্টন

ইউনিট

MCQ পরীক্ষা

লিখিত পরীক্ষা
নম্বর সময় নম্বর সময়
মানবিক ৬০ ৪৫ মিনিট ৪০ ৪৫ মিনিট
ব্যবসায়  ৬০ ৪৫ মিনিট ৪০ ৪৫ মিনিট
বিজ্ঞান  ৬০ ৪৫ মিনিট ৪০ ৪৫ মিনিট
চারুকলা ৪০ ৩০ মিনিট  ৬০ ৬০ মিনিট

 ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি ফি কত

আপনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্ডারগ্রাজুয়েট বা অনার্স লেভেলের যেকোন প্রোগ্রামে ভর্তি হোন না কেন, গড়ে সর্বনিম্ন ১০ হাজার টাকা এবং সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকার মত ভর্তি ফি দিতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে মোট খরচ হবে?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির মোট খরচ জানতে হলে। আগে দুইটা জিনিস বুঝতে হবে। এক একাডেমিক খরচ দুই রেসিডেনশিয়াল খরচ। প্রতি সেমিস্টার ফি ৫-৬ হাজার টাকা। যদি আপনি আবাসিক হলে থাকেন, তাহলে খাওয়া বাবদ প্রতি মাসে ৪ হাজার টাকা লাগবে। হাত খরচ আপনার উপর। যদিও ইন্টারনেট, যাতায়াত ও আনুষঙ্গিক অনেক কিছু বিশ্ববিদ্যালয় দিয়ে থাকে।

তো সবমিলিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যে কোন অনার্স প্রোগ্রাম শেষ করতে একাডেমিক খরচ সর্বোচ্চ ৭০ হাজার টাকা আসবে।

আর খাওয়া বাবদ ৪ বছরে প্রায় ২ লক্ষ টাকা আসবে। কেননা প্রতি মাসে ৪ হাজার টাকা লাগবে। সে হিসেবে আমি হিসাব করেছি। এরচেয়ে আরও কম লাগতে পারে। এছাড়া যারা স্কলারশিপ পাবে তাদের অর্ধেক টাকা বা আরও কম লাগতে পারে।

পড়ার খরচ কাভার করা যাবে?

হ্যা, অবশ্যই। টিউশনি, ফ্রিল্যান্সিং, এসাইনমেন্ট, ডিপার্টমেন্টাল সিরিমনি ওয়ার্ক ইত্যাদি মাধ্যমে টাকা আর্ন করা যাবে। এমনকি একটা টিউশনির মাধ্যমে প্রতি মাসের খাওয়ার টাকা জোগাড় করতে পারবেন ইজিলি। এছাড়া তুমি যদি ভালো রেজাল্ট কর, তাহলে ডিপার্টমেন্ট থেকে একটা স্কলারশিপ পাবে। তাছাড়া ডাচ বাংলা তো আছেই। এভাবে আরও স্কলারশিপ আছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২২-২০২৩

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২৩ (১)
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২২-২০২৩
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২৩ (২)
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২৩ (৩)

কোটায় ভর্তি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারীর ওয়ার্ড কোটা (কেবল ছেলে/মেয়ে/স্বামী/স্ত্রী), উপজাতি/ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠি, হরিজন ও দলিত সম্প্রদায়, প্রতিবন্ধি (দৃষ্টি, বাক, শ্রবণ, শারীরিক, নিউরো-ডেভেলপমেন্টাল ডিজঅর্ডারস, ট্রান্সজেন্ডার/হিজড়া), মুক্তিযোদ্ধার সন্তান/মুক্তিযোদ্ধার নাতি/নাতনীসহ, খেলোয়াড় (শুধুমাত্র বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিকেএসপি থেকে এইচ এস সি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্র/ছাত্রীদের) কোটায় ভর্তি প্রার্থীদেরকে সংশ্লিষ্ট ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশের ৭ দিনের মধ্যে ঐ ইউনিটের ডিন অফিস থেকে ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র প্রদর্শন পূর্বক নির্ধারিত ফরম সংগ্রহ করতে হবে।

কোটার নির্ধারিত ফরম যথাযথভাবে পূরণ করে যে কোটায় ভর্তি হতে ইচ্ছুক তার প্রত্যয়নপত্র/সনদপত্র/ প্রমাণপত্র সহ সংশ্লিষ্ট ইউনিট প্রধানের অফিসে অফিস চলাকালীন সময়ে জমা দিতে হবে।

  • ওয়ার্ড কোটার ক্ষেত্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট অফিস প্রধানের প্রত্যয়নপত্র।
  • উপজাতি/ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠি কোটার ক্ষেত্রে স্ব-স্ব উপজাতি/ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠি প্রধান/জেলা প্রশাসক এর সনদপত্রের সত্যায়িত ফটোকপিসহ
  • হরিজন ও দলিত সম্প্রদায় কোটার ক্ষেত্রে হরিজন ও দলিত সম্প্রদায় সংগঠন প্রধানের সনদপত্র।
  • প্রতিবন্ধি কোটার ক্ষেত্রে সঠিকতার সনদপত্র।
  • মুক্তিযোদ্ধার সন্তান/মুক্তিযোদ্ধার নাতি/নাতনীসহ কোটার ক্ষেত্রে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক ইস্যুকৃত সনদপত্র অথবা ১৯৯৭ সন থেকে ২০০১ সন পর্যন্ত বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের অধীনে তৎকালীন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রতিস্বাক্ষরিত মুক্তিযোদ্ধার সনদপত্র।
  • খেলোয়াড় কোটায় শুধুমাত্র বিকেএসপি থেকে এইচ এস সি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সনদপত্র প্রাপ্ত হতে হবে।

পোস্টটি সর্বশেষ ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ তারিখ সকাল ১১ টায় আপডেট করা হয়েছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!